[Valid RSS]
September 25, 2022, 1:58 pm
Treanding
GIZ Bangladesh’s training held on SDG localisation in Khulna ছোটদের সহজ প্রোগ্রামিং শিক্ষায় প্রকাশিত হল বাংলা স্ক্র্যাচ বই Ditching Russian gas no way to reach climate goals : Putin চট্টগ্রামে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ে প্রচারনা কর্মসূচি সমাপ্ত Samsung brings month-long smartphone campaign On September 6–7, Vladimir Putin will make working trip to Vladivostok Two Russian embassy workers killed in ‘suicide bombing’ Shocked & devastated by the horrific attacks : Justin Trudeau  SSC, equivalent exams begin Sept 15: Dipu Moni Ten killed in Canadian stabbing spree Russia wants UN to pressure US : media Daraz Bangladesh Anniversary Campaign – Now LIVE! realme offers upto BDT 3400 off on occasion of Daraz’s 8th anniversary General Pharmaceuticals employees will receive insurance from MetLife চট্টগ্রামের কলেজিয়েট স্কুলে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ে প্রচারনা কর্মসূচি শুরু Bangladesh a secular country, immediate action is taken whenever minorities are attacked: PM  Two more mortar shells from Myanmar land in Bangladesh OPPO launches killer device A57 in 15-20K price range ShareTrip and Grameenphone join hands to offer exciting travel privileges ড্যাপ ২০২২-২০৩৫ এর পরিপূর্ণ বাস্তবায়নের দাবী বিআইপির

৩০ আগস্ট এক নজরে বাংলাদেশ

Bangladesh Beyond
  • Updated on Tuesday, August 30, 2022
  • 88 Impressed

৩০ আগস্ট এক নজরে বাংলাদেশ

 

উন্নয়নের গতি অব্যাহত রাখতে শেখ হাসিনার কোনো বিকল্প নেই : তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী

 

নওগাঁ, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

 

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহ্‌মুদ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বের কারণে বর্তমান সরকারের সময় দেশে অভাবনীয় উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। উন্নয়নের এই অগ্রগতি অব্যাহত রাখতে হলে দেশ পরিচালনার ক্ষেত্রে পুনরায় শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগের কোনো বিকল্প নেই। ‘কারণ বিএনপি ক্ষমতায় এলে দেশে আবারো সন্ত্রাস, আগুন সন্ত্রাস, বোমাহামলা আর জঙ্গিবাদের উত্থান ঘটবে এবং যারা আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়েছিল, যাদের সময় বিদ্যুৎ আর সারের জন্য মানুষ হত্যা করা হয়েছিল, যারা দুর্নীতিতে পর পর ৫ বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশের মানুষ তাদের আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না’ বলেন তিনি।

 

আজ নওগাঁ নওজোয়ান ঈদগাহ মাঠে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত ’১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে বিশাল শোক সমাবেশে’ প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

 

নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক এমপি মোঃ আব্দুল মালেকের সভাপতিত্বে সমাবেশে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, কেন্দ্রীয় কমিটির স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, নওগাঁর শহিদুজ্জামান সরকার এমপি, ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন এমপি, মোঃ ছলিম উদ্দিন তরফদার এমপি এবং মোঃ আনোয়ার হোসেন হেলাল এমপি বক্তব্য রাখেন।

 

ড. হাছান বলেন, ‘বিএনপি’র সময় বিদ্যুতের খাম্বা রাজনীতির কথা সবার জানা আছে। সে সময় বিদ্যুৎ আর সারের জন্য মানুষকে হত্যা করা হয়েছিল। বিএনপি’র সময় মাঝে মাঝে বিদ্যুৎ আসতো। আর এখন মাঝে মাঝে বিদ্যুৎ যায়।

 

ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সারা পৃথিবীতে কিছুটা বিরূপ প্রভাব পড়েছে, বাংলাদেশও এর বাইরে নয় উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বের উন্নত দেশগুলোতেও জ্বালানি-বিদ্যুৎ সংকটে মানুষ কষ্ট পাচ্ছে, সেখানে সরকারিভাবে মানুষকে সাশ্রয়ী করতে নানা পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। তবে আশার কথা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর সুদূরপ্রসারী নেতৃত্ব দিয়ে ইতিমধ্যে জ্বালানি তেলের মূল্য সমন্বয় করার পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। আর কিছুদিনের মধ্যেই মানুষের জীবনযাত্রা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবে।’

 

ড. হাছান মাহ্‌মুদ বলেন, ‘মানুষের এই সাময়িক কষ্ট দেখে বিএনপি মায়াকান্না দেখাচ্ছে। কিন্তু বিএনপি’র এই অধিকার নেই। কারণ দেশের মানুষের দুঃখ-কষ্ট আওয়ামী লীগের মতো আর কেউ বোঝে না। তবে সরকারের উদারতা দেখে বিএনপি যদি আবারো আগুনসন্ত্রাস, নাশকতা, মানুষ হত্যার রাজনীতি শুরু করে সেক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ বসে থাকবে না। জনগণকে সাথে নিয়েই প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে। সরকারও চুপচাপ বসে থাকবে না, প্রশাসন শক্ত হাতে তা প্রতিরোধ করবে।’

 

রাষ্ট্রপতির কাছে বাংলাদেশে নবনিযুক্ত কুয়েত এবং নেপালের রাষ্ট্রদূতদ্বয়ের পরিচয়পত্র পেশ

 

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

 

রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদের কাছে আজ বঙ্গভবনে বাংলাদেশে নবনিযুক্ত কুয়েতের রাষ্ট্রদূত Faisal Mutlaq Aladwani এবং নেপালের রাষ্ট্রদূত Ghanshyam Bhandari পরিচয়পত্র পেশ করেন।

 

নতুন দূতগণ বঙ্গভবনে পৌঁছলে প্রেসিডেন্ট গার্ড রেজিমেন্টের একটি চৌকস দল তাদের গার্ড অভ্‌ অনার প্রদান করে।

 

রাষ্ট্রপতির কাছে প্রথমে কুয়েতের নতুন রাষ্ট্রদূত তার পরিচয়পত্র পেশ করেন। এরপরই পরিচয়পত্র পেশ করেন নেপালের রাষ্ট্রদূত।

 

কুয়েতের নতুন রাষ্ট্রদূতকে স্বাগত জানিয়ে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ বলেন, কুয়েত বাংলাদেশের অন্যতম উন্নয়ন অংশীদার এবং শ্রমশক্তির গুরুত্বপূর্ণ গন্তব্যস্থল। রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশ থেকে আরো দক্ষ ও আধাদক্ষ জনশক্তি নিতে কুয়েত সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

 

বাংলাদেশ থেকে বিশ্বমানের পণ্য আমদানি করার কথাও বলেন রাষ্ট্রপতি। তিনি দু’দেশের মধ্যে সম্পর্ক উন্নয়নে সফর বিনিময় ও আলোচনার ওপর জোর দেন ।

 

নেপালের নতুন রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে বৈঠককালে রাষ্ট্রপতি বলেন, বাংলাদেশ ও নেপালের মধ্যে চমৎকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বিদ্যমান। ২০১৯ সালে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির নেপাল সফর এবং ২০২১ সালে নেপালের রাষ্ট্রপতির বাংলাদেশ সফরের কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, এ সফরের মাধ্যমে দু’দেশের সম্পর্কে নতুন অধ্যায়ের সূচনা হয়েছে। তিনি দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্য-বিনিয়োগ বাড়াতে যোগাযোগ বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

 

সাক্ষাৎকালে কুয়েত ও নেপালের নতুন রাষ্ট্রদূতগণ দায়িত্ব পালনে রাষ্ট্রপতির সহযোগিতা কামনা করেন। করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রশংসা করে নেপালের নতুন রাষ্ট্রদূত এ ব্যাপারে নেপালকে সহযোগিতা প্রদানের জন্য কৃতজ্ঞতা জানান।

 

রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া, সামরিক সচিব মেজর জেনারেল এস এম সালাহ উদ্দিন ইসলাম, প্রেস সচিব মোঃ জয়নাল আবেদীন এবং সচিব সংযুক্ত মোঃ ওয়াহিদুল ইসলাম খান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

 

শৈশব থেকেই বাঙালির হাল ধরার ব্রত নিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু  : আইনমন্ত্রী

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, শৈশব থেকেই বাঙালির হাল ধরার ব্রত নিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। তাঁর জীবনটাই ছিল বাংলাদেশের মানুষকে নিজের অধিকার ও স্বাধিকার সম্পর্কে সচেতন করার কাজে। সেজন্য  পাকিস্তানের সামরিক শাসকরা বঙ্গবন্ধুকে সবসময়  চরমশত্রু মনে করতো এবং  তাঁকে বারবার কারাগারে পাঠায়। তিনি বলেন, খুনিরা জানতো যে, বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারকে শেষ করতে পারলে বাংলাদেশকে হত্যা করা সম্ভব।

          আজ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদতবার্ষিকী, জাতীয় শোক দিবস ও ২১ আগস্ট জননেত্রী শেখ হাসিনার ওপর গ্রেনেডে হামলার প্রতিবাদে  ‘শোকের আগস্ট, শপথের আগস্ট’ র্শীষক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন। আয়োজক বঙ্গবন্ধু পরিষদের কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।

আইনমন্ত্রী বলেন, একাত্তরের পরাজিত শক্তি তাদের পরাজয়ের গ্লানি মেনে নিতে পারেনি। সেজন্য তারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ষড়যন্ত্র করে। বঙ্গবন্ধু দেশ স্বাধীন করার পর সকলকে নিয়ে সোনার বাংলা গড়তে চেয়েছিলেন। তিনি বিশ্বাস করতে পারেননি, কোন বাঙালি তাঁকে হত্যা করতে পারে।

আনিসুল হক বলেন, জিয়াউর রহমান ক্ষমতা দখল করেই রাজাকার ও আইয়ুব খানের মন্ত্রী সভার সদস্যদের মন্ত্রী বানিয়েছেন। খুনিদের কূটনৈতিক মিশনে চাকরি দিয়ে পুরস্কৃত করেছেন। জিয়াউর রহমানের কর্মকাণ্ডই প্রমাণ করে তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত ছিলেন। এটা প্রমাণ করতে রকেট সায়েন্স লাগে না। তিনি বলেন, ২০০৯ সালে জননেত্রী শেখ হাসিনা পুনরায় সরকার গঠন না করলে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার বিচার শেষ হতো না। কারণ ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত এই মামলার আপিল শুনানি হাইকোর্টে স্থগিত করে রাখা হয়েছিল। সাতজন বিচারপতি এই মামলার আপিল শুনানি করতে বিব্রতবোধ করেন। বাংলাদেশকে ধ্বংস করার সবরকম পরিকল্পনা ও ষড়যন্ত্র তারা করেছে।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যে যারা কাজ করেছেন তাদের চিহ্নিত করতে অবশ্যই কমিশন হওয়া দরকার। এদের চিহ্নিত করতে না পারলে আবারও বাংলাদেশের অগ্রগতি থামিয়ে দিতে পারে এরা, বলেন আইনমন্ত্রী। তিনি বলেন, প্রতিশোধমূলক ব্যবস্থা হিসেবে এই কমিশন গঠন করা হবে না। ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্টের নৃশংস হত্যাকাণ্ডের সাথে কারা জড়িত ছিল, নতুন ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সেটা জানানোর জন্যই এই কমিশন গঠন করা হবে। এছাড়া কাদের  ব্যাপারে তাদের সাবধানতা অবলম্বন করা দরকার সেটা জানানোও এই কমিশনের উদ্দেশ্য।

          কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি কাজী ওমর সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে এবং পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাহিদ হাসানের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আব্দুল মঈন, বঙ্গবন্ধু পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ডা. এস এ মালেক ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. আ ব ম ফারুক, বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মোঃ আসাদুজ্জামান প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

 

 

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে বৃহত্তর কুষ্টিয়া অফিসার্স কল্যাণ ফোরাম ঢাকা আয়োজিত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

 

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

 

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে বৃহত্তর কুষ্টিয়া অফিসার্স কল্যাণ ফোরাম ঢাকা আয়োজিত আলোচনা সভা আজ ঢাকায় তথ্য ভবন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।

 

আলোচনা সভায় সম্মানিত অতিথি হিসাবে বক্তব্য প্রদানকালে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, বিশ্বের ইতিহাসে ১৫ই আগস্টের মতো এমন নিষ্ঠুর হত্যাকাণ্ড আর ঘটেনি। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে এই নৃশংসতম হত্যাকাণ্ড  সংঘটিত  হয়।

 

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, একাত্তরের পরাজিত শক্তি প্রতিশোধ নেয়ার জন্য ১৫ই আগস্টের হত্যাকাণ্ড ঘটায়। হত্যাকারীরা চেয়েছিলো স্বাধীনতার চেতনা এবং আওয়ামী লীগকে চিরতরে নিশ্চিহ্ন করে দিতে।

 

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি প্রধান অতিথির বক্তৃতাকালে বলেন, পঁচাত্তরের ১৫ই আগস্ট বাঙালি জাতির জন্য সবচেয়ে কলঙ্কময় দিন। এই ঘটনার সাথে পাকিস্তান জড়িত ছিল। পাকিস্তানের সাথে হত্যাকারীদের সরাসরি যোগাযোগ ছিল।

 

বৃহত্তর কুষ্টিয়া অফিসার্স কল্যাণ ফোরাম, ঢাকার সভাপতি প্রকৌশলী মোঃ আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে কৃষি সচিব মোঃ সাইদুর রহমান আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন। তথ্য সচিব মোঃ মকবুল হোসেন অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন।

 

ইতিহাস বিকৃতিরোধে সাংবাদিকদের বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখতে হবে : পানি সম্পদ উপমন্ত্রী

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

          পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম  বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধের রণধ্বনি জয় বাংলা স্লোগানকে বিএনপি নিষিদ্ধ করে দেয়, বন্ধ করে দেয় ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ প্রচার। গণমাধ্যম থেকে পাঠ্যপুস্তক পর্যন্ত সব জায়গা থেকে বঙ্গবন্ধুকে মুছে ফেলার অপপ্রয়াস চালানো হয়। তার পদাঙ্ক অনুসরণ করে জিয়ার পর খালেদা জিয়াও যুদ্ধাপরাধীদের এমপি-মন্ত্রী করেছেন। দেশের ইতিহাস বিকৃতির জনক বিএনপি, তারাই ইতিহাসের খলনায়ক জিয়াউর রহমানকে বারবার ইতিহাসের নায়ক বানানোর ব্যর্থ চেষ্টা করেছে। তাই ইতিহাস বিকৃতিরোধে সাংবাদিকদের বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখতে হবে। কারণ, গণমাধ্যম হলো সমাজ ও রাষ্ট্রের দর্পণ। সাংবাদিকরা হলেন জাতির বিবেক।

          জাতীয় শোক দিবস ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আজ রাজধানীর একটি মিলনায়তনে টেলিভিশন ক্যামেরা জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

          উপমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাঙালি জাতির হাজার বছরের আরাধ্য যে কাক্সিক্ষত স্বাধীনতা অর্জিত হয়। তিনিই স্বাধীনতার ঘোষক। কোনো মেজরের হুইসেলে স্বাধীনতা হয়নি। মহান মুক্তিযুদ্ধে জিয়াউর রহমান ছিলেন পাকিস্তানি গুপ্তচর। জিয়া অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের নানাভাবে পুরস্কৃত করে। জিয়া ১৯৭৯ সালের ৯ জুলাই কুখ্যাত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশকে আইনে রূপান্তর করেন। সেদিন সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনীর মধ্যে দিয়ে তাঁর আমলে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার বাধাগ্রস্ত করা হয়। ইনডেমনিটি অধ্যাদেশকে আইনে রূপান্তর করে জিয়া প্রমাণ করেছেন তিনি বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের রক্ষাকারী এবং এই হত্যার ষড়যন্ত্রের মূল কুশীলব।

          এনামুল হক শামীম বলেন, বিএনপি অরাজকতা ও সন্ত্রাস সৃষ্টি করে ক্ষমতায় যেতে চায়। বিএনপি-জামায়াত কখনো জনগণের বন্ধু হতে পারে না। আস্তাকুঁড়ে বিএনপি কখনো আর দাঁড়াতে পারবে না। ক্ষমতায় যেতে হলে  নগণের কাছে পাশে থাকতে হয়। পেট্রোল বোমা মেরে মানুষ হত্যা করে ক্ষমতায় আসা যায় না৷ খালেদা জিয়াতো এতিমের টাকা মারার দায়ে সাজাপ্রাপ্ত। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কৃপায় বাসায় থাকতে পারছে খালেদা জিয়া, এটা ভুলে গেলে চলবে না। সুতরাং ক্ষমতায় আসতে হলে সংবিধান অনুয়ায়ী নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে হবে। নিজেদের জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের জন্য হলেও বিএনপির নির্বাচনে আসা উচিত। দেশের উন্নয়ন, অগ্রগতি, সমৃদ্ধির ধারাবাহিকতা রক্ষায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগকে পঞ্চমবারের মতো ক্ষমতায় আনবে জনগণ।

           টেলিভিশন ক্যামেরা জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি শেখ মাহবুব আলমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শহিদুল হক জীবনের সঞ্চালনায় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এমপি, এডভোকেট সাইফুজ্জামান শিখর এমপি, আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এমএ কাদের খান, ডিইউজে’র সভাপতি সোহেল হায়দার চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেন, ডিআরইউ’র সভাপতি নজরুল ইসলাম মিঠু সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম হাসিব।

 

বঙ্গবন্ধুর আদর্শের ভিত্তি ছিল দেশপ্রেম : আইনমন্ত্রী

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

          আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের ভিত্তি ছিল দেশপ্রেম, মানুষের প্রতি গভীর ভালোবাসা। এখন আমাদের কর্তব্য তাঁর প্রতি ভালোবাসা দেখানো।

          জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিব এর ৪৭ তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ মুসলিম নিকাহ রেজিস্ট্রার কল্যাণ সমিতি এ সভার আয়োজন করে।

          আনিসুল হক বলেন, বঙ্গবন্ধু ১৯৪৮ সালে ছাত্রলীগ গঠন করেন। এরপর তিনি বাঙালির অধিকার ও স্বাধীকার অর্জনের প্রত্যেকটি আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি ঘরে বসে রাজনীতি করেননি, মাঠের রাজনীতি করেছেন। টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া এবং  বেনাপোল থেকে তামাবিল পর্যন্ত সারা বাংলাদেশে সশরীরে গিয়ে দেশের মানুষকে দাবি আদায়ে সচেতন করেছেন। তারপর স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন। তিনিই একমাত্র বাঙালি রাজনীতিক যিনি তৎকালীন পাকিস্তানের সামরিক শাসকদের সাথে আপস করেননি। তিনি স্বাধীনতা ঘোষণা করে পালিয়ে যাননি। এজন্য তাঁকে ১৪ বছর জেল খাটতে হয়েছে। এজন্যই তাঁর ডাকে সাড়ে সাত কোটি বাঙালি  সারা দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলো।

          আইনমন্ত্রী আনিসুল হক দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, পাকিস্তানি সামরিক শাসকরাও যাকে মারার সাহস দেখাতে পারেনি, তাঁকে এদেশেরই কিছু সংখ্যক কুলাঙ্গার সন্তান দেশি-বিদেশি অপশক্তির সহায়তায় সপরিবারে  হত্যা করেছে। ২৫ বছর এই হত্যাকাণ্ডের বিচারের পথ রুদ্ধ করে রাখা হয়েছিলো। ২০০১ থেকে ২০০৬ সালের মধ্যে  হাইকোর্টের সাতজন বিচারপতি বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার আপিল শুনানি গ্রহণ করতে বিব্রতবোধ করেছিলো। এই ছিলো তাদের চিন্তাধারা ও কর্ম।

          মানুষের আয় ও সঞ্চয় অনুযায়ী দেনমোহর নির্ধারণ করার আহ্বান জানিয়ে কাজীদের উদ্দেশ্যে আইনমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে যুগের অনেক পরিবর্তন হয়েছে, অর্থনৈতিক সক্ষমতাও বেড়েছে। তিনি বলেন, ১৪-১৫ বছরের মেয়ের সুস্থ সন্তান হতে পারে না। সবকিছু বিবেচনা করে মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ করা হয়েছে। ১৮ বছরের কম বয়সী  মেয়েদের বিয়ে নিবন্ধন না করার নির্দেশ দেন তিনি।

          বাংলাদেশ মুসলিম নিকাহ রেজিস্ট্রার কল্যাণ সমিতির সভাপতি কাজী মোঃ মামুনুর রশিদের সভাপতিত্বে ও সমিতির মহাসচিব হাফেজ সাগর আহমেদ শাহীনের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আইন মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার  বিভাগের  সচিব মোঃ গোলাম সারওয়ার, নিবন্ধন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক শহিদুল আলম ঝিনুকসহ সমিতির নেতৃবৃন্দ বঙ্গবন্ধুর জীবন আদর্শ নিয়ে আলোচনা করেন।

          অনুষ্ঠান শেষে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে নৃশংস হত্যাকণ্ডের শিকার বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যদের রুহের মাফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।

 

সারের কৃত্রিম সংকট রোধে ৩৮৩ ডিলার-ব্যবসায়ীকে ৫৭ লাখ টাকা জরিমানা : কৃষিমন্ত্রী

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

            কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, সারের কৃত্রিম সংকট ও কারসাজি রোধে সারা দেশে আগস্ট মাসে ৩৮৩টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়েছে। এর মাধ্যমে অনিয়মে জড়িত ৩৮৩ জন ডিলার ও খুচরা ব্যবসায়ীকে ৫৭ লাখ ৬৮ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

            আজ সচিবালয়ে ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত Pham Viet Chien এর সাথে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। এসময় কৃষিসচিব মোঃ সায়েদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

            মন্ত্রী বলেন, শুধু জরিমানা নয়, সার কারসাজিতে জড়িত ডিলারদের লাইসেন্স বাতিল করা হবে। লাইসেন্স দিয়েছে শিল্প মন্ত্রণালয়। সেজন্য, লাইসেন্স বাতিলের জন্য তাদের নাম শিল্প মন্ত্রণালয়ে প্রেরণের কাজ চলছে।

            মন্ত্রী বলেন, আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত সারের মজুতে কোন সমস্যা নেই। গুদামে পর্যাপ্ত সার রয়েছে। একই সাথে, গত বছরের তুলনায় এ বছর বরাদ্দও বেশি দেয়া হয়েছে। তারপরও কোথাও কোথাও সারের সংকটের কথা   শোনা যাচ্ছে। এটি হতে পারে না। ডিলার ও খুচরা ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি মাঠ প্রশাসন বা মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের কারো গাফিলতি পাওয়া গেলে-তাদেরকেও শাস্তির আওতায় আনা হবে।

            এমওপি সার প্রসঙ্গে মন্ত্রী জানান, আগস্ট মাসে আজ পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারিভাবে আমদানিকৃত ১ লাখ ৮০ হাজার টন এমওপি সার দেশে পৌঁছেছে। আগামী সেপ্টেম্বর মাসে ১ লাখ ১৬ হাজার টন সার দেশে পৌঁছবে। অন্যদিকে, সেপ্টেম্বরে ৫১ হাজার টন  ও অক্টোবরে ৭০ হাজার টন এমওপি সারের চাহিদা রয়েছে। ফলে চাহিদার চেয়ে মজুত অনেক বেশি থাকবে।

            উল্লেখ্য, চাহিদার বিপরীতে দেশে সব রকমের সারের পর্যাপ্ত মজুত রয়েছে। বর্তমানে (২৫ আগস্ট) ইউরিয়া সারের মজুত ৬ লাখ ৫৬ হাজার মেট্রিক টন, টিএসপি ৩ লাখ ৯৪ হাজার টন, ডিএপি ৮ লাখ ২৩ হাজার টন, এমওপি ২ লাখ ৭৩ হাজার টন। সারের বর্তমান মজুতের বিপরীতে আমন মৌসুমে (আগস্ট থেকে অক্টোবর মাস পর্যন্ত) সারের চাহিদা হলো ইউরিয়া ৬ লাখ ১৯ হাজার টন, টিএসপি ১ লাখ ১৯ হাজার টন, ডিএপি ২ লাখ ২৫ হাজার টন, এমওপি ১ লাখ ৩৭ হাজার টন। বিগত বছরের একই সময়ের তুলনায়ও সারের বর্তমান মজুত বেশি।

            চালের দাম শিগগিরই কমবে উল্লেখ করে মন্ত্রী আরো বলেন, ভিয়েতনাম থেকে ২ লাখ ৩০ হাজার টন চাল আনা হচ্ছে। জিটুজি ভিত্তিতে এ চাল আনা হচ্ছে। চাল আসতে ১৫-২০ দিন লাগতে পারে। এছাড়া, রাশিয়া থেকে ৩ লাখ টন গম আনা হচ্ছে। অন্যদিকে, দেশে প্রায় ১৮ লাখ টন খাদ্য মজুত আছে। খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় ৫০ লাখ পরিবারকে ১৫ টাকা কেজিতে চাল দেয়া হবে। এছাড়া, টিসিবির মাধ্যমে ১ কোটি পরিবারকে ৩০ টাকা কেজিতে চাল বিতরণ করা হবে। ওএমএসেও চাল বিক্রি করা হবে। সব মিলিয়ে চালের দাম শিগগিরই কমবে।

            এর আগে ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূতের সাথে বৈঠকে দু’দেশের কৃষি সহযোগিতা বৃদ্ধির বিষয়ে আলোচনা হয়। ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত পাম ভিয়েট চিয়েন বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম ও নেদারল্যান্ডসের মধ্যে কৃষি সহযোগিতার জন্য ত্রিপক্ষীয় চুক্তি করার প্রস্তাব প্রদান করেন। তিনি বলেন, ভিয়েতনাম ও নেদারল্যান্ডসের মধ্যে কৃষি সহযোগিতা রয়েছে। নেদারল্যান্ডসের সহযোগিতার ফলে ভিয়েতনামের কৃষি উন্নত হয়েছে। যেহেতু তিনটি দেশই ডেল্টা, কাজেই তাদের পারস্পরিক সহযোগিতায় সবপক্ষই উপকৃত হবে।

            ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত জানান, কাজুবাদাম রপ্তানিতে ভিয়েতনাম বর্তমানে প্রথম এবং কফি রপ্তানিতে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। কাজুবাদাম-কফি রপ্তানির শতকরা ৫০ ভাগ সে দেশে উৎপাদিত হয়, বাকিটা ভারত ও আফ্রিকার দেশসমূহ থেকে এনে প্রক্রিয়াজাত করা হয়।

            বাংলাদেশে কাজুবাদাম ও কফির চাষ সম্প্রসারণে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে জানিয়ে কৃষিমন্ত্রী এক্ষেত্রে ভিয়েতনামের সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি বলেন, গত ২ বছরে আমরা ২০ লাখ কাজুবাদামের চারা কৃষকদেরকে দিয়েছি। ইতোমধ্যে এসব গাছে কাজুবাদামের ফলন শুরু হয়েছে। আশা করছি, কাজুবাদাম উৎপাদনে বাংলাদেশও ভাল করবে।

 

জাতীয় স্বার্থের কথা বিবেচনায় নিয়ে চিকিৎসা গবেষণায় জোরালো ভূমিকা রাখতে হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, দেশে বর্তমানে ক্যান্সারে দিনে প্রায় আড়াইশ’, হৃদরোগে আড়াইশ’ এমনকি সাপের কামড়েও দিনে প্রায় ১৫ জনের মতো মানুষ মারা যাচ্ছে। করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ যেখানে বিশ্বে ৫ম স্থান অর্জন করেছে, দক্ষিণ এশিয়ায় ১ম স্থান অর্জন করেছে সেখানে শব্দ দূষণ, পরিবেশ দূষণে বাংলাদেশ এখনো বিশ্বের তলানির সারির দেশের কাতারেই আছে। এই অবস্থায় বাংলাদেশ থাকতে পারে না। বাংলাদেশ এখন অর্থনৈতিকভাবে মজবুত একটি দেশ। এ কারণেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়নে গবেষণাখাতে জোর দিতে ২০২১-২২ অর্থ বছরের জন্য ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। এই গবেষণার কাজকে খুবই তাৎপর্যের সাথে দেখতে হবে। দেশের স্বার্থের কথা বিবেচনায় নিয়ে যে যে খাতে গবেষণা জরুরি সেগুলো প্রায়োরিটি দিতে হবে। বর্তমানে মানুষের শ্বাস-কষ্ট বেশি হচ্ছে, ক্যান্সার, হৃদরোগ বৃদ্ধি পাচ্ছে, এগুলোর পাশাপাশি দেশে শব্দ-দূষণ, পরিবেশ দূষণ বেড়ে গেছে। এগুলোকে গুরুত্ব দিয়ে গবেষণা কাজ করতে হবে।

মন্ত্রী আজ রাজধানীর বিয়াম মাল্টিপারপাস হলে, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কলাণ বিভাগ আয়োজিত সমন্বিত স্বাস্থ্য-বিজ্ঞান গবেষণা ও উন্নয়ন তহবিল কার্যক্রমের আওতায় গবেষণা অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

গবেষণার গুরুত্ব তুলে ধরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এসময় বলেন, ওরস্যালাইন আবিস্কারের আগে কেউ জানতো না এত সহজে এত বড় চিকিৎসা উপাদান আবিষ্কার করা যেতে পারে। এগুলো গবেষণার সুফল। তাই গবেষণার কাজে প্রয়োজনে আরো বরাদ্দ বাড়ানো হবে, তবুও জাতীয় ইস্যুগুলো চিহ্নিত করে সঠিকভাবে গবেষণা কাজগুলো করতে হবে। এটি ঠিকভাবে করা গেলে এমডিজি অর্জনের মতো এসডিজি অর্জনেও সফল হতে পারবো।

দেশে অবৈধ বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিকের অনিয়ম ঠেকাতে স্বাস্থ্যখাতের অভিযান চলমান থাকবে এবং প্রয়োজনে আরো জোরালো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও এসময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী উল্লেখ করেন।

উল্লেখ্য, স্বাস্থ্য বিষয়ক গবেষণা ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট বক্তৃতায় সমন্বিত স্বাস্থ্য বিজ্ঞান গবেষণা ও উন্নয়ন বাবদ ১০০ কোটি টাকা তহবিল বরাদ্দের ঘোষণা দেয়া হয়। পরবর্তীতে সমন্বিত স্বাস্থ্য বিজ্ঞান গবেষণা ও উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে ‘সমন্বিত স্বাস্থ্য-বিজ্ঞান গবেষণা ও উন্নয়ন তহবিল কার্যক্রম সম্পর্কিত নীতিমালা-২০২১ প্রণয়ন করে অর্থ বিভাগ কর্তৃক প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন গ্রহণ করা হয়। গবেষণা রিভিউয়ের লক্ষ্যে দুই শতাধিক বিশেষজ্ঞকে নিয়ে একটি রিভিউয়ার প্যানেল গঠন করা হয়।

এ প্রেক্ষিতে, ২০২১-২২ অর্থবছরে গবেষণাকার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে গবেষকদেরকে গবেষণা প্রস্তাব দাখিলের জন্য ১০ মে ২০২১ তারিখে দু’টি জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় (দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন এবং দ্য ডেইলি স্টার) বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তির আলোকে মোট ৬৫৭টি গবেষণা প্রস্তাব পাওয়া যায়। প্রাপ্ত গবেষণা প্রস্তাবগুলো টেকনিক্যাল কমিটি কর্তৃক প্রাথমিক বাছাইয়ের পর ২১৪টি গবেষণা প্রস্তাব রিভিউয়ের জন্য নির্বাচিত হয়। প্রাথমিক বাছাইয়ে নির্বাচিত ২১৪টি প্রটৌকল সংশ্লিষ্ট রিভিউয়ার কর্তৃক রিভিউ সম্পন্ন করা হয়। রিভিউকৃত ২১৪টি প্রটৌকল অ্যাওয়ার্ড কমিটি কর্তৃক যাচাই-বাছাইয়ের পর ৬৩টি প্রস্তাবের অনুকূলে গবেষণা অ্যাওয়ার্ড প্রদানের (অর্থ বরাদ্দ) সুপারিশ করা হয়। অ্যাওয়ার্ড কমিটির সুপারিশেরভিত্তিতে ৬৩টি গবেষণা প্রস্তাবের মোট ৬৬ কোটি ৮৬ লাখ ৯৫ হাজার ৮ টাকার মধ্যে অর্থ বিভাগ ২৫% হারে ১৬ কোটি ৭১ লাখ ৭৩ হাজার ৭৫২ টাকা অর্থ ছাড় করে।

স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব সাইফুল হাসান বাদলের সভাপতিত্বে সভায় সুচনা বক্তব্য রাখেন সমন্বিত স্বাস্থ্য-বিজ্ঞান গবেষণা অ্যাওয়ার্ড কমিটির সভাপতি ও ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অভ্ নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড হসপিটালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. কাজী দ্বীন মোহাম্মদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএসএমএমইউ’র উপাচার্য অধ্যাপক ডা. শারাফুদ্দিন আহমেদ, স্বাচিপ-এর সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলান, স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এনায়েত হোসেনসহ অন্য ব্যক্তিবর্গ।

 

ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্সে অংশগ্রহণকারীদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পরিদর্শন

 

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

          ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ (এনডিসি) পরিচালিত ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্স-২০২২ এ অংশগ্রহণকারী দেশি-বিদেশি প্রশিক্ষণার্থী তাঁদের প্রশিক্ষণের অংশ হিসেবে আজ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পরিদর্শন করেন। এতে এনডিসি’র দেশি-বিদেশি ৮৮ জন প্রশিক্ষণার্থী কর্মকর্তা এবং এনডিসি’র ঊর্ধ্বতন ১০ জন ফ্যাকাল্টি মেম্বার অংশগ্রহণ করেন।

          এ উপলক্ষ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ বাংলাদেশ ফরেন সার্ভিস একাডেমির মিলনায়তনে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পর্কে প্রশিক্ষণার্থীদেরকে অবহিত করা হয়।

          অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (পশ্চিম) শাব্বির আহমদ চৌধুরী, বাংলাদেশ ফরেন সার্ভিস একাডেমির রেক্টর আসাদ আলম সিয়াম, বাংলাদেশ ফরেন সার্ভিস একাডেমির মহাপরিচালক শাহ আহমেদ শফী, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) ডি এম সালাহ উদ্দিন মাহমুদ এবং বাংলাদেশ ফরেন সার্ভিস একাডেমির কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

ফিলিং স্টেশন মানসম্পন্ন দৃষ্টিনন্দন করার উদ্যোগ দ্রুত বাস্তবায়ন আবশ্যক : জ্বালানি খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

          বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, ফিলিং স্টেশন মানসম্পন্ন ও দৃষ্টিনন্দন করার উদ্যোগটি দ্রুত বাস্তবায়ন করা আবশ্যক। ওয়াশ ব্লক পরিচ্ছন্ন ও পর্যাপ্ত রাখা বাঞ্ছনীয়। জ্বালানি তেল বিক্রয় নেটওয়ার্ক শক্তিশালীকরণে আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে মনিটরিং জোরদার রাখতে হবে।

          প্রতিমন্ত্রী আজ সচিবালয়ে জিপিএস লোকেশনভিত্তিক ফিলিং স্টেশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম এবং বিদ্যমান নীতিমালার আলোকে নতুন ফিলিং স্টেশনের জন্য প্রস্তুতকৃত লে-আউট/নকশা/মডেল সংক্রান্ত পর্যালোচনা সভায়    প্রধান অতিথির বক্তব্যকালে এসব কথা বলেন।

          প্রতিমন্ত্রী বলেন, জ্বালানি তেলের ভেজাল রোধকল্পে ফিলিং স্টেশনের কার্যক্রম তদারকি বাড়াতে হবে। জিপিএস লোকেশনসহ ফিলিং স্টেশনগুলোর সার্বিক অবস্থা হালনাগাদ করার উদ্যোগ ভালো। বিপিসির ইআরপি’র ম্যাপে এটাকে সংযুক্ত করার ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে।

           সভায় অন্যান্যের মাঝে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মোঃ মাহবুব হোসেন, বিপিসি’র চেয়ারম্যান এ বি এম আজাদ, পদ্মা অয়েল কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ আবু সালেহ ইকবালসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তর প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।

 

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর সাথে মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ

 

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

          আজ ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের সাথে তার বাংলাদেশ সচিবালয়ের দপ্তরে বাংলাদেশে মার্কিন রাষ্ট্রদূত Peter Haas সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎকালে তারা দ্বিপাক্ষিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট টেলিযোগাযোগ খাতের অগ্রগতি সংক্রান্ত বিষয় ছাড়াও রোহিঙ্গা ক্যাম্পে যোগাযোগের জন্য দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে টেলিযোগাযোগ সুবিধা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে মতবিনিময় করেন।

          ডাক ও  টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার বিদ্যমান ভালো সম্পর্কের উল্লেখ করেন।  তিনি  বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদৃষ্টিসম্পন্ন নেতৃত্বে গত তের বছরে ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি বাস্তবায়নের  ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ বৈপ্লবিক পরিবর্তন সূচিত হয়েছে। তিনি বলেন, আইটিইউ টেলিযোগাযোগ খাতের একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠান। বঙ্গবন্ধু ১৯৭৩ সালে আইটিইউ’র সদস্যপদ অর্জন এবং ১৯৭৫ সালের ১৪ জুন বেতবুনিয়ায়  উপগ্রহ ভূকেন্দ্র স্থাপনের  মাধ্যমে কৃষিভিত্তিক এ দেশেটি ডিজিটাল বিপ্লবের বীজ বপন করেন। প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর রোপণ করা সেই বীজকে তার ১৮ বছরের শাসনকালে মহীরূহে রূপান্তর করেছেন বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন।

          রাষ্ট্রদূত দেশের টেলিযোগাযোগ খাতসহ বিভিন্ন খাত বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা করেন। তিনি ডিজিটাল প্রযুক্তিতে বাংলা ভাষা প্রবর্তনে মোস্তাফা জব্বারের ভূমিকার প্রশংসা করেন। তিনি মন্ত্রীর ডিজিটাল প্রযুক্তিতে তার অভিজ্ঞতার নানা বিষয় নিয়ে কথা বলেন।

 

মূল্য নির্ধারণ করে দেবে টেরিফ কমিশন, ব্যত্যয় হলেই আইনি ব্যবস্থা : বাণিজ্যমন্ত্রী

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

          বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, সরকার নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের সরবরাহ, মজুত ও মূল্য স্বাভাবিক রাখতে সবধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। ভোক্তার অধিকার সুরক্ষায় বাংলাদেশ ট্রেড এন্ড টেরিফ কমিশন এবং জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর কাজ করে যাচ্ছে। ব্যবসায়ী সংগঠন, ব্যবসায়ী এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে সততার সাথে ব্যবসা পরিচালনা করার জন্য সবধরনের সহযোগিতা প্রদান করা হচ্ছে। এরপরও দেখা যাচ্ছে কিছু পণ্যের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধি করা হচ্ছে। এ ধরনের অনিয়মের বিরুদ্ধে নিয়মিত বাজার অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। এখন থেকে অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে শুধু জরিমানা আদায় নয়, কঠোর আইনি ব্যবস্থাও নেয়া হবে। আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্য তেলের মূল্য বৃদ্ধির কারণে সরকার ভোজ্য তেলের যৌক্তিক মূল্য নির্ধারণ করে দিচ্ছে। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, এখন থেকে বাংলাদেশ ট্রেড এন্ড টেরিফ কমিশন আমদানিকারক ও সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের সাথে আলাপ আলোচনা করে যৌক্তিক মূল্য নিশ্চিত করতে পণ্যের মূল্য প্রতিমাসেই নির্ধারণ করে দেবে। পণ্যগুলো হলো চাল, গম (আটা, ময়দা) ভোজ্যতেল, (সয়াবিন, পাম), পরিশোধিত চিনি, মশুর ডাল, পেঁয়াজ, রড এবং সিমেন্ট। এছাড়াও, কোন পণ্যের অযৌক্তিক মূল্য বৃদ্ধি করা হলে সেগুলোরও মূল্য নির্ধারণ করে দেবে সরকার।

          বাণিজ্যমন্ত্রী আজ ঢাকায় বাংলাদেশ সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় আয়োজিত নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য, সরবরাহ ও বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত সভায় সভাপতিত্ব করে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

          সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে সয়াবিন ও পাম ওয়েল এর মূল্য কিছুটা কমলেও ডলারের মূল্য বৃদ্ধির কারণে এর সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। সরকার এ বিষয়ে সতর্ক আছে, কিছুদিন পর পর এর মূল্য সমন্বয় করা হচ্ছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য স্বাভাবিক রাখতে সরকার ইতোমধ্যে চাল আমদানির ওপর থেকে ট্যাক্স তুলে নিয়েছে। জ¦ালানি তেলের মূল্য কমানো হয়েছে। প্রয়োজনে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে এ ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হতে পারে, তবে ভোক্তাদের স্বার্থ রক্ষা এবং দেশীয় শিল্প সুরক্ষার নামে যাতে কেউ অনৈতিক সুযোগ নিতে না পারে, সেদিকেও নজর রাখা হবে। এ ক্ষেত্রে অনিয়ম পাওয়া গেলে কঠোর আইনগত ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

          সভাটি পরিচালনা করেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ। সভায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ট্রেড এন্ড টেরিফ কমিশনের চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার, বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের চেয়ারপার্সন মোঃ মফিজুল ইসলাম, ট্রেডিং করপোরেশন অভ্ বাংলাদেশ (টিসিবি) এর চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ আরিফুল হাসান, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান। এছাড়া, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও বিভাগ, বাংলাদেশ ব্যাংক এবং গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিবৃন্দ সভায় যোগদান করেন।

 

রেলওয়ের অপটিক্যাল ফাইবার লিজ প্রদান আয় বৃদ্ধির অংশ : রেলপথ মন্ত্রী

 

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

রেলপথ মন্ত্রী মোঃ নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, বাংলাদেশ রেলওয়েও বহুমুখী আয়ের জন্য বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নিয়েছে। রেলের অপটিক্যাল ফাইবার লিজ প্রদান রেলের আয় বৃদ্ধি কার্যক্রমের একটি অংশ বলে জানান রেলপথ মন্ত্রী।

আজ রেলভবনে পাঁচটি কোম্পানির সাথে বাংলাদেশ রেলওয়ের অপটিক্যাল ফাইবার লিজ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, রেলওয়ে একটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান। এটি ভর্তুকি দিয়ে চলছে। রেলের অনেক সম্পদ আছে। আমরা সেখান থেকে আয় বাড়ানোর উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। তিনি বলেন, একটি দেশের ভারসাম্যপূর্ণ যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য, টেকসই উন্নয়নের জন্য রেল খাতের উন্নয়ন জরুরি। আমরা ভবিষ্যতে রেলের জমি সহ পণ্য পরিবহনের ব্যবহার বৃদ্ধির মাধ্যমে রাজস্ব আয় বাড়ানোর বহুমুখী কার্যক্রম গ্রহণ করছি।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ রেলওয়ের দৈনন্দিন ট্রেন পরিচালনায় টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। দুটি স্টেশনের মধ্যে লাইন ক্লিয়ার আদান-প্রদানে অপটিক্যাল ফাইবারের মাধ্যমে টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপন করা হয় । বাংলাদেশে সর্বপ্রথম ১৯৮৪ সালে রেলের মাধ্যমে অপটিক্যাল ফাইবার স্থাপন করা হয়। প্রাথমিক পর্যায়ে ১৯৯০ সালে ১৬০০ কিলোমিটার অপটিক্যাল ফাইবার স্থাপন করা হলেও বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে অদ্যাবধি ৩২০৫ কিলোমিটার অপটিক্যাল ফাইবার স্থাপন করা হয়েছে। আজ যাদের সাথে চুক্তি করা হলো তারা হচ্ছে বাহন লিঃ, সামিট কমিউনিকেশন লিঃ, বাংলালিংক ডিজিটাল কমিউনিকেশন লিমিটেড, রবি আজিয়াটা লিঃ, ফাইবার হোম লিঃ। পাঁচটি কোম্পানির সাথে বাংলাদেশ রেলওয়ের মোট ১৭৭ কোটি ৩৯ লাখ ৮০ হাজার টাকার চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় ।

বাংলাদেশ রেলওয়ের পক্ষে সকল ক্ষেত্রে চুক্তি স্বাক্ষর করেন চিফ সিগনাল ও টেলিকম কর্মকর্তা বেনুরঞ্জন সরকার। বাহন লিমিটেড এর পক্ষে স্বাক্ষর করেন সাঈদ সামিউল হক, এম ডি বাহন লিমিটেড । সামিট কমিউনিকেশনস লিমিটেডের পক্ষে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আলি মুর্তজা খান। বাংলালিংক ডিজিটাল কমিউনিকেশন এর পক্ষে এরিক আস (Eric Aas) এমডি ও চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার। রবির পক্ষে পেরিহেম এলহামি (Perihane Elhami)  চিফ টেকনিক্যাল অফিসার। ফাইবার লিমিটেড এর পক্ষে রাজীব আহমেদ সুলতান, চিফ মার্কেটিং অফিসার চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মোঃ হুমায়ুন কবীর। এ সময় বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক ধীরেন্দ্রনাথ মজুমদারসহ রেলপথ মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

 

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের এডিপি অগ্রগতি ৯৬ দশমিক ৫৯ ভাগ

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

‍          নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় ২০২১-২২ অর্থবছরে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) ৯৬ দশমিক ৫৯ ভাগ অগ্রগতি করেছে। যেখানে জাতীয় গড় অগ্রগতি ৯২ দশমিক ৮০ ভাগ। মন্ত্রণালয় বা বিভাগের বাস্তবায়ন অগ্রগতি সংক্রান্ত প্রতিবেদন অনুসারে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অবস্থান ষষ্ঠ। ২০২০-২১ অর্থবছরে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অগ্রগতির হার ছিল  ৮৮ ভাগ এবং অবস্থান ছিল ১১তম। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় ২০২১-২২ অর্থবছরে ৪৫টি প্রকল্পের মধ‍্যে ১৩টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে।

আজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সকল সংস্থার ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের এডিপিভুক্ত জিওবি ও সংস্থার নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়নাধীন উন্নয়ন প্রকল্পের অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় এসব তথ‍্য জানানো হয়।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় ২০২২-২৩ অর্থবছরে ৩৫টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে। এর মধ‍্যে ৩১টি এডিপিভুক্ত,  তিনটি নিজস্ব অর্থায়নে এবং একটি স্কিম প্রকল্প। এজন‍্য বরাদ্দ পেয়েছে ৭ হাজার ৭৫ কোটি ৫ লাখ টাকা। এডিপিভুক্ত প্রকল্পের জন‍্য বরাদ্দ ৬ হাজার ৩০২ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়নের জন‍্য বরাদ্দ ৭৭২ কোটি ৬৭ লাখ টাকা।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। এসময় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: মোস্তফা কামাল, জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম‍্যান ড. মনজুর আহমেদ চৌধুরী, বিআইডব্লিউটিসি, বিআইডব্লিউটিএ ও বাংলাদেশ স্থলবন্দরের চেয়ারম‍্যানগণ এবং নৌপরিবহন অধিদফতরের মহাপরিচালক উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে নির্ধারিত সময়ের মধ‍্যে প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন করতে অর্থবছরের শুরুতেই কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করতে প্রকল্প পরিচালকদের নির্দেশনা দেয়া হয়।

 

বিএনপি নাশকতা করলে জনগণকে সাথে নিয়ে প্রতিহত করবে আওয়ামী লীগ  : তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী

নাটোর, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ  বলেছেন, বিএনপি যদি রাজনীতির নামে আবার ভাংচুর, বিশৃংখলা, মানুষ হত্যা, জ্বালাও-পোড়াও করে তাহলে সরকার যেমন ব্যবস্থা নেবে তেমনি জনগণকে সাথে নিয়ে  আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তাদের প্রতিহত করবে।

আজ নাটোরে বাংলাদেশ টেলিভিশন উপকেন্দ্রে নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এ প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপি ২০১৩-১৪-১৫ সালে মানুষের ওপর আক্রমণ পরিচালনা করেছে, পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে মানুষ হত্যা করেছে, সেই সময় দিনের পর দিন অবরোধের পর অবরোধ করে মানুষের মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হয়েছে। বিএনপি যদি আবার সেই পথে হাঁটে, জনগণের জানমালের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করে তাহলে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা নিশ্চয়ই জনগণের জানমালের নিরাপত্তা বিধানের জন্য জনগণের সাথে থাকবে। জনগণ তাদেরকে আর সেই কাজ করার সুযোগ দেবে না। তিনি বলেন, আবার যদি বিএনপির দুষ্কৃতিকারীরা বা তাদের ছত্রছায়ায় কেউ এ ধরনের অপকর্ম করে, প্রশাসনও বসে থাকবে না, কারণ জনগণের নিরাপত্তা দেয়া সরকারের দায়িত্ব, পুলিশ প্রশাসনের দায়িত্ব।

বিএনপি-জামায়াত ঐক্য প্রসঙ্গে ড. হাছান বলেন, গতকাল মির্জা ফখরুল সাহেবকে এ নিয়ে যখন প্রশ্ন করা হয় তখন তিনি উত্তর এড়িয়ে গেছেন। এই এড়িয়ে যাওয়ার মাধ্যমে বিএনপি আসলে স্বীকার করে নিয়েছে জামাত-বিএনপির ঐক্য অবিচ্ছেদ্য। তাদের ঐক্য সবসময় আছে এবং থাকবে।

বিটিভি নাটোর উপকেন্দ্রের নতুন ভবন উদ্বোধন বিষয়ে সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৪ সালে এই উপকেন্দ্রটি স্থাপন করেছিলেন। তিনি উত্তরা গণভবনে মন্ত্রিসভার সভাও করেছিলেন এবং সেটিকে উপলক্ষ্যে করে এখানে এই উপকেন্দ্রটি স্থাপন করা হয়েছিলো।  আজকে আমরা এখানে নতুন ভবন উদ্বোধন করেছি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার প্রতিটি বিভাগীয় সদরে একটি করে পূর্ণাঙ্গ টেলিভিশন কেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, সে হিসেবে রাজশাহীতে একটি পুর্ণাঙ্গ টেলিভিশন কেন্দ্র খুব সহসা স্থাপিত হবে। আমাদের চেষ্টা থাকবে, আগামী নির্বাচনের আগে সীমিত আকারে অনুষ্ঠান শুরু করার জন্য। আর উপকেন্দ্রগুলোতে স্থানীয় অনুষ্ঠান ধারণ করে সম্প্রচার করা হবে-যাতে স্থানীয় সংস্কৃতি বিকশিত হয়, স্থানীয় শিল্পীরা তাদের প্রতিভা উপস্থাপন করতে পারেন, অনুপ্রাণিত হন।

‘বাংলাদেশ টেলিভিশনের দেশব্যাপী ডিজিটাল টেরিস্ট্রিয়াল সম্প্রচার’ প্রকল্পের আওতায় দুই কোটি টাকা ব্যয়ে গণপূর্ত বিভাগের তত্ত্বাবধানে নির্মিত তিনতলা টেলিভিশন উপকেন্দ্র ভবনের প্রথম তলায় বৈদ্যুতিক উপকেন্দ্র, দ্বিতীয় তলায় সম্প্রচার ও নিয়ন্ত্রণ কক্ষ এবং তৃতীয় তলায় রয়েছে অফিস কক্ষ।

নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস এমপি, বিটিভি’র মহাপরিচালক সোহরাব হোসেন, নাটোরের জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ, পুলিশ সুপার মোঃ সাইফুর রহমান, বিটিভি’র প্রধান প্রকৌশলী মুনীর আহমদ, নাটোর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শরিফুল ইসলাম রমজান, নাটোর পৌরসভার মেয়র উমা চৌধুরী জলি প্রমুখ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

 

 

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ১ম বর্ষে ভর্তির ১ম রিলিজ স্লিপের মেধা তালিকা প্রকাশ

 

 

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

 

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) ভর্তি কার্যক্রমে ১ম রিলিজ স্লিপের মেধা তালিকা গতকাল প্রকাশ করা হয়েছে। এ ফলাফল SMS (nu<space>athn<space>roll no টাইপ করে ১৬২২২ নম্বরে send করতে হবে) এর মাধ্যমে এবং ভর্তি বিষয়ক ওয়েবসাইটে (www.nu.ac.bd/admissions) থেকে পাওয়া যাবে। ১ম রিলিজ স্লিপে মোট এক লাখ ২২ হাজার ৬৭০ জন শিক্ষার্থী মেধা তালিকায় স্থান পেয়েছে।

এ সকল শিক্ষার্থীকে ৬ সেপ্টেম্বরের মধ্যে চূড়ান্ত ভর্তি ফরম পূরণ করে রেজিস্ট্রেশন ফিসহ ফরম
৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সংশ্লিষ্ট কলেজে জমা দিতে হবে।

আজ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

 

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষককর্মচারীদের আগস্ট মাসের বেতনভাতার ৮টি চেক হস্তান্তর

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

          মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরাধীন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের শিক্ষক-কর্মচারীদের আগস্ট মাসের বেতন-ভাতার সরকারি অংশের ৮টি চেক অনুদান বণ্টনকারী অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংক লিমিটেড, প্রধান কার্যালয়ে এবং জনতা ও সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, স্থানীয় কার্যালয়ে হস্তান্তর করা হয়েছে।

          আগামী ৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট শাখা ব্যাংক হতে আগস্ট মাসের বেতন-ভাতার সরকারি অংশ উত্তোলন করা যাবে।

 

ওমরাহ এজেন্সি সন্দীপ ওভারসিজের নিকট পাওনা থাকলে ধর্ম মন্ত্রণালয়কে অবহিত করতে হবে

 

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

          ধর্ম মন্ত্রণালয় কর্তৃক নিবন্ধিত ওমরাহ এজেন্সি সন্দীপ ওভারসিজ (ওমরাহ লাইসেন্স নং-৩৩২) এর লাইসেন্স প্রত্যাহারপূর্বক জামানতের ১০ লাখ টাকার এফডিআর ফেরত প্রদানের জন্য আবেদন করা হয়েছে।

তাই বর্ণিত এজেন্সির নিকট কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কোনো পাওনা বা অভিযোগ থাকলে আগামী
৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ এর মধ্যে প্রমাণকসহ ধর্ম মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।

ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানিয়েছে।

 

শিক্ষামন্ত্রীর সাথে জাতিসংঘের আবাসিক প্রতিনিধির সাক্ষাৎ

 

ঢাকা, ১৫ ভাদ্র (৩০ আগস্ট) :

বাংলাদেশে নিযুক্ত জাতিসংঘের আবাসিক প্রতিনিধি গুইন এল ওয়াইজ (Gwyn Lweis) গতকাল শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সাথে সচিবালয়ে তাঁর দফতরে সাক্ষাৎ করেছেন। এই সময়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আবু বক্কর ছিদ্দীক উপস্থিত ছিলেন।

সাক্ষাৎকালে সেপ্টেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিতব্য ‘ট্রাসফরমিং এডুকেশন’ শীর্ষক কনফারেন্সের বিষয়ে বিশদ আলোচনা হয়। তাছাড়া বাংলাদেশে ব্লেন্ডেড লার্নিং বিষয়ে গৃহীত বিভিন্ন উদ্যোগ, করোনাকালীন শিখন ঘাটতি পূরণে সরকারের গৃহীত উদ্যোগ প্রভৃতি বিষয়ে আলোচনা হয়।

 

Read us@googlenews

 

Social

More News
© Copyright: 2020-2022

Bangladesh Beyond is an online version of Fortnightly Apon Bichitra 

(Reg no: DA 1825)

Developed By Bangladesh Beyond