[Valid RSS]
September 25, 2022, 3:00 pm
Treanding
GIZ Bangladesh’s training held on SDG localisation in Khulna ছোটদের সহজ প্রোগ্রামিং শিক্ষায় প্রকাশিত হল বাংলা স্ক্র্যাচ বই Ditching Russian gas no way to reach climate goals : Putin চট্টগ্রামে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ে প্রচারনা কর্মসূচি সমাপ্ত Samsung brings month-long smartphone campaign On September 6–7, Vladimir Putin will make working trip to Vladivostok Two Russian embassy workers killed in ‘suicide bombing’ Shocked & devastated by the horrific attacks : Justin Trudeau  SSC, equivalent exams begin Sept 15: Dipu Moni Ten killed in Canadian stabbing spree Russia wants UN to pressure US : media Daraz Bangladesh Anniversary Campaign – Now LIVE! realme offers upto BDT 3400 off on occasion of Daraz’s 8th anniversary General Pharmaceuticals employees will receive insurance from MetLife চট্টগ্রামের কলেজিয়েট স্কুলে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ে প্রচারনা কর্মসূচি শুরু Bangladesh a secular country, immediate action is taken whenever minorities are attacked: PM  Two more mortar shells from Myanmar land in Bangladesh OPPO launches killer device A57 in 15-20K price range ShareTrip and Grameenphone join hands to offer exciting travel privileges ড্যাপ ২০২২-২০৩৫ এর পরিপূর্ণ বাস্তবায়নের দাবী বিআইপির

৫ সেপ্টেম্বর এক নজরে বাংলাদেশ

Bangladesh Beyond
  • Updated on Monday, September 5, 2022
  • 91 Impressed

৫ সেপ্টেম্বর এক নজরে বাংলাদেশ

 

বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতির সম্মেলন অনুষ্ঠিত

 

ঢাকা, ২১ ভাদ্র (৫ সেপ্টেম্বর) : 

 

বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতির ২ দিনব্যাপী ১৭তম জাতীয় সম্মেলন ও সেমিনার আজ ঢাকায় বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) মিলনায়তনে উদ্বোধন হয়। এবারের জাতীয় সম্মেলনের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় ‘বাংলাদেশে অন্তর্ভুক্তিমূলক ও টেকসই কৃষি উন্নয়ন’। সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এবং পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম।   

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন সাবেক সিনিয়র সচিব এবং সম্মেলন ও সেমিনার ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়ক মোঃ মেসবাহুল ইসলাম। বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতির সভাপতি, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সিনিয়র সচিব সাজ্জাদুল হাসান সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন।   

প্রধান অতিথি স্পিকার বলেন, কৃষি অর্থনীতিবিদগণ দেশের কৃষি ও কৃষকের উন্নতি, কৃষির প্রবৃদ্ধি এবং টেকসই কৃষিনীতি প্রণয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। তিনি রপ্তানিমুখী কৃষি, কৃষিতে প্রযুক্তির ব্যবহার এবং পরিবেশবান্ধব কৃষিতে অবদান রাখা এবং জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে সকলকে ঐক্যবদ্ধ অবদান রাখার আহ্বান জানান।

বিশেষ অতিথি খাদ্যমন্ত্রী বলেন, কৃষির উন্নয়নে কৃষি অর্থনীতিবিদগণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। কৃষি অর্থনীতিবিদগণ কৃষি প্রযুক্তির ব্যবহার, উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি এবং উৎপাদন ব্যবস্থায় দক্ষতা অর্জনে নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি দেশে নন-হিউম্যান ভোগে যে পরিমাণ খাদ্যশস্য ব্যবহার করা হয় তার একটি হিসাবও নিরূপণ করার পরামর্শ প্রদান করেন।

বিশেষ অতিথি পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী বলেন, কৃষিখাতের প্রধান সমস্যা হচ্ছে কৃষিতে স্বল্প বিনিয়োগ। তিনি আরো বলেন, বর্তমানে বাজারে কৃষিপণ্যের দাম স্থিতিশীল রাখার স্বার্থে বাজার ব্যবস্থাপনা নিয়ে গবেষণা হওয়া দরকার।      

সম্মেলনে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান ও সাবেক উপাচার্যগণ, সরকারের সচিবগণ, বিভিন্ন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষকবৃন্দ, বিভিন্ন দপ্তর, অধিদপ্তরের কর্মকর্তাগণ, স্বনামধন্য অধ্যাপকবৃন্দ, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তাগণ ও ছয়শতকের অধিক কৃষি অর্থনীতিবিদ উপস্থিত ছিলেন। সেমিনারে ১ম দিনে ২০টি গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়।

 

রাষ্ট্রপতির সাথে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের নবনিযুক্ত বিচারপতিগণের সাক্ষাৎ

 

ঢাকা, ২১ ভাদ্র (৫ সেপ্টেম্বর) :

 

রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদের সাথে আজ বঙ্গভবনে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের নবনিযুক্ত বিচারপতিগণ সাক্ষাৎ করেন।  

 

নবনিযুক্ত বিচারপতিগণ হলেন বিচারপতি মোহাম্মদ শওকত উল্লাহ চৌধুরী, বিচারপতি মোঃ আতাবুল্লাহ, বিচারপতি বিশ্বজিৎ দেবনাথ, বিচারপতি মোঃ আমিনুল ইসলাম, বিচারপতি মোঃ আলী রেজা, বিচারপতি
মোঃ বজলুর রহমান, বিচারপতি কে এম ইমরুল কায়েশ, বিচারপতি ফাহমিদা কাদের, বিচারপতি মোঃ বশির উল্লাহ, বিচারপতি এস এম মাসুদ হোসেন দোলন এবং বিচারপতি এ কে এম রবিউল হাসান।

 

রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মোঃ জয়নাল আবেদীন ব্রিফিংয়ে জানান, হাইকোর্ট বিভাগের নতুন বিচারপতিদের অভিনন্দন জানিয়ে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ আশা করেন জনগণ যাতে দ্রুত ন্যায়বিচার পায় সেজন্য নতুন বিচারপতিগণ তাদের মেধা ও অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগাবেন। বিচার বিভাগের প্রতি জনগণের প্রত্যাশা অনেক উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি জনপ্রত্যাশা পূরণে বিচার কার্যক্রমে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানোর ওপর জোর দেন।

 

রাষ্ট্রপতির সচিবগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

 

রাষ্ট্রপতির কাছে বাংলাদেশে নিউজিল্যাণ্ডের নবনিযুক্ত হাইকমিশনারের পরিচয়পত্র পেশ

 

ঢাকা, ২১ ভাদ্র (৫ সেপ্টেম্বর):

রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদের কাছে আজ বঙ্গভবনে বাংলাদেশে নিউজিল্যান্ডের নবনিযুক্ত হাইকমিশনার David Gregory Pine পরিচয়পত্র পেশ করেন। নতুন দূত বঙ্গভবনে পৌঁছলে প্রেসিডেন্ট গার্ড রেজিমেন্টে একটি চৌকস দল তাদের গার্ড অভ্ অনার প্রদান করে। 

সাক্ষাৎকালে রাষ্ট্রপতি বলেন, স্বাধীনতার পর বাংলাদেশকে স্বীকৃতিদানকারী প্রথম দিকের দেশ নিউজিল্যান্ড। নিউজিল্যান্ডের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক অত্যন্ত চমৎকার এবং এ সম্পর্ক ক্রমান্বয়ে বহু মাত্রিক ক্ষেত্রে সম্প্রসারিত হচ্ছে। বাংলাদেশি পণ্যে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার প্রদানের জন্য নিউজিল্যান্ডের প্রতি ধন্যবাদ জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, এর মাধ্যমে দ্বীপাক্ষিক বাণিজ্য-বিনিয়োগ আরো সম্প্রসারিত হবে। এ সময় বাংলাদেশের প্রাণিসম্পদ খাতে বিনিয়োগে এগিয়ে আসার জন্য নিউজিল্যান্ডের বিনিয়োগকারীদের প্রতি আহ্বান জানান রাষ্ট্রপতি। 

রাষ্ট্রপতি বলেন, বাংলাদেশ সমুদ্রগামী জাহাজ, পোশাক, ঔষধ, সিরামিকসহ বিশ্বমানের বিভিন্ন ধরনের পণ্য উৎপাদন করে থাকে। নিউজিল্যান্ড বাংলাদেশ থেকে এসব পণ্য আমদানি করতে পারে। এ সময়

নিউজিল্যান্ডের নতুন হাইকমিশনার দায়িত্ব পালনকালে রাষ্ট্রপতির সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।

রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া, সামরিক সচিব মেজর জেনারেল এস এম সালাহ উদ্দিন ইসলাম, প্রেস সচিব মোঃ জয়নাল আবেদীন  এবং সচিব (সংযুক্ত)  মোঃ ওয়াহিদুল ইসলাম খান এসময় উপস্থিত ছিলেন।

 

Jashim Uddin appointed new Ambassador of Bangladesh to China

 

Dhaka, 5 September:

 

The Government has decided to appoint Ambassador Md. Jashim Uddin as the next Ambassador of Bangladesh to China. He’ll be replacing Ambassador Mahbub Uz Zaman in this capacity.

 

A career diplomat, Ambassador Md. Jashim Uddin belongs to 13th batch of the Bangladesh Civil Service (BCS) – Foreign Affairs cadre. Currently he is serving as the Ambassador of Bangladesh to the State of Qatar. Earlier he was the Ambassador of Bangladesh to Greece, with concurrent accreditation to Malta and Albania. In his illustrious diplomatic career, Ambassador Jashim has the experience of serving at different Bangladesh Missions such as New Delhi, Tokyo, Washington DC and Islamabad in different capacities. Also at the headquarters, he held important positions like Director General of both South Asia and East Asia & Pacific Wings.

 

Ambassador Jashim obtained his Bachelor and Masters degree in International Relations from the University of Dhaka. He also obtained a Masters degree in Modern International Studies from University of Leeds in England. He completed NDC course from National Defense College in 2014.

 

Under the able leadership of Ambassador Md. Jashim Uddin, Bangladesh Embassy in Athens received the prestigious Public Administration Award in 2018 for bringing about innovative changes to ensure efficient consular service delivery.

 

In his personal life, Mr. Jashim is married and blessed with two children.

 

আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হবে এসএসসি-সমমান পরীক্ষা ২০২২

ঢাকা, ২১ ভাদ্র (৫ সেপ্টেম্বর):

আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে এসএসসি-সমমান পরীক্ষা শুরু হবে। ১১টি শিক্ষা বোর্ডের আওতায় এবার এ পরীক্ষায় সারা দেশের মোট ২০ লাখ ২১ হাজার ৮৬৮ জন পরীক্ষার্থীর অংশগ্রহণ করার কথা রয়েছে। যানজট এড়াতে এক ঘণ্টা পিছিয়ে সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত পরীক্ষার সময় নির্ধারণ করা হয়েছে।

আজ এসএসসি-সমমান পরীক্ষা-২০২২ সুষ্ঠু, প্রশ্নফাঁসের গুজবমুক্ত ও ইতিবাচক পরিবেশে সম্পন্ন করতে জাতীয় মনিটরিং ও আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত কমিটির সভা শেষে শিক্ষামন্ত্রী ডা.দীপু মনি সাংবাদিকদের কাছে এসব তথ্য তুলে ধরেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সার্বিক দিক বিবেচনা করে যানজট এড়াতে এসএসসি পরীক্ষা সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত হওয়ার কথা থাকলেও সেটি পিছিয়ে সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত করা হয়েছে। এতে করে সকলের সুবিধা হবে।

মন্ত্রী জানান, দেশের ১১টি শিক্ষা বোর্ডের আওতায় মোট ২০ লাখ ২১ হাজার ৮৬৮ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবে। সারা দেশে ৩ হাজার ৭৯০টি কেন্দ্রে মোট ২৯ হাজার ৫৯১ টি বিদ্যালয়ে পরীক্ষা আয়োজন করা হবে। তার মধ্যে নয়টি সাধারণ বোর্ডের আওতায় পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১৫ লাখ ৯৯ হাজার ৭১১ জন, দাখিলে ২ লাখ ৬৮ হাজার ৪৯৫ জন। মাদ্রাসা বোর্ডের আওতায় দাখিল পরীক্ষায় ২ লাখ ৬৮ হাজার পরীক্ষার্থীর জন্য ৭১৫টি কেন্দ্রে ৯ হাজার ৯৩টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী রয়েছে।

এছাড়া কারিগরি বোর্ডের আওতায় এসএসসি (ভোকেশনাল) ও দাখিল (ভোকেশনাল) পরীক্ষায় ১ লাখ ৫৩ হাজার ৬৬২ জন পরীক্ষার্থী রয়েছে। মোট ৮২৮টি কেন্দ্রে ২ হাজার ৮১৮টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করবে। এছাড়া দেশের বাহিরে আটটি দেশে ৩৬৭ জন পরীক্ষার্থী রয়েছে।

মন্ত্রী আরো জানান, পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে প্রবেশ করতে হবে। কেউ দেরি করলে তার কারণ গেটে রেজিস্ট্রার খাতায় উল্লেখ করে প্রবেশ করতে দিতে হবে। সে তথ্য পরীক্ষা শেষে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ডে পাঠাতে হবে। পরীক্ষা কেন্দ্রের মধ্যে কেউ মোবাইল ব্যবহার করতে পারবেন না। শুধু কেন্দ্র সচিব বাটন মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন। পরীক্ষা কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে বহিরাগত কেউ প্রবেশ করতে পারবে না। প্রতিটি কেন্দ্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এ পরীক্ষা আয়োজন করতে হবে। পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে প্রশ্নের সেট কোড ঘোষণা করা হবে।  সে অনুযায়ী দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেট সরকরি কর্মকর্তার উপস্থিতিতে কেন্দ্র সচিব ও পুলিশ কর্মকর্তার স্বাক্ষরে প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খুলবেন।

মন্ত্রী বলেন, কোনো প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক বা প্রতিষ্ঠানের প্রধান পাবলিক পরীক্ষায় বেআইনি কোনো কাজ করলে সে প্রতিষ্ঠান, প্রতিষ্ঠান প্রধান, শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। প্রয়োজনে পরীক্ষা কেন্দ্র বাতিল করা হবে। দোষী শিক্ষক ও কর্মচারীদের (সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হলে) চাকরি হতে সাময়িক বরখাস্ত করে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে এবং বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে তাদের এমপিওভুক্তি বাতিল করাসহ আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

কোভিড-১৯ সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন

 

ঢাকা, ২১ ভাদ্র (৫ সেপ্টেম্বর) :

 

          স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)-এর তথ্যানুযায়ী গতকাল রবিবার সকাল ৮টা থেকে আজ সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৩৩৩ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ পাওয়া গেছে। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ৬ দশমিক ৬৮ শতাংশ। এ সময় ৪ হাজার ৯৮৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

 

গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে কেউ মারা যায়নি। এ পর্যন্ত ২৯ হাজার ৩২৮ জন করোনায় মৃত্যুবরণ করেছেন। করোনাভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৫৭ হাজার ৪৫৮ জন। 

 

 

দেশের পর্যটন শিল্পকে বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরতে হবে : পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ২১ ভাদ্র (৫ সেপ্টেম্বর):

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মোঃ মাহবুব আলী দেশের পর্যটন শিল্পকে বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরার আহ্বান জানিয়েছেন।

আজ গাজীপুরে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের ‘সালনা পর্যটন রিসোর্ট এন্ড পিকনিক স্পট’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী এ আহ্বান জানান।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, পর্যটন সম্পর্কে যেকোনো কথা বলতে গেলেই এই খাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদান সামনে আসবে। তিনি বাংলাদেশকে প্রাচ্যের সুইজারল্যান্ড হিসেবে গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন। সেই লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, পর্যটনকে নিয়ে আগে সেভাবে চিন্তা করা হয়নি, আজকে যেভাবে চিন্তা করা হচ্ছে। বর্তমান বিশ্বে কেউ পিছিয়ে থাকতে চায় না। সবাই এগিয়ে যাচ্ছে পর্যটনে। আমরা এগিয়ে যেতে চাই। সেজন্য দরকার আমাদের পর্যটনকে বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরা। দেশি-বিদেশি থেকে শুরু করে বেসরকারি খাতের সবাইকে পর্যটনের বিকাশে এগিয়ে আসতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, বেসরকারি খাতই সব দেশের পর্যটনকে এগিয়ে নিয়েছে। সরকার শুধু নীতিগত সাপোর্ট দেয়। সরকার অংশীজনদের সকল প্রকার নীতিগত সহায়তা প্রদানে প্রস্তুত। আগামী ডিসেম্বর মাসে পর্যটন মহাপরিকল্পনা প্রণয়ন সম্পূর্ণ হলে দেশের পর্যটন শিল্পের সামগ্রিক উন্নয়নের দ্বার উন্মোচন হবে। পর্যটন শিল্প বিকশিত হলে দেশের জিডিপিও আরো বাড়বে।

বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান মোঃ আলি কদরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোকাম্মেল হোসেন, অতিরিক্ত সচিব সুকেশ কুমার সরকার, মোঃ ওলিউল্লাহ, বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবু তাহির মোঃ জাবের ও গাজীপুরের জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান।

উল্লেখ্য, ৯ কোটি ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সালনা রিসোর্ট এন্ড পিকনিক স্পটের নির্মাণ কাজ ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে শুরু হয়ে শেষ হয় চলতি বছরের ৩০ জুন। এখানে রয়েছে আধুনিক ৬টি কটেজ, রেস্টুরেন্ট, পেস্ট্রি ও কফি কর্নার, কনফারেন্স হল এবং ২ টি পিকনিক শেড। শিশুদের জন্যও রয়েছে বিনোদন সুবিধা ও রাইড। ৩ দশমিক ১২ একর জমির ওপর এই সালনা রিসোর্টটি গড়ে তোলা হয়েছে। ঢাকা থেকে ৩৩ কিলোমিটার উত্তরে ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়কের বঙ্গবন্ধু কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিপরীতে গাজীপুর জেলার দক্ষিণ সালনাতে এই রিসোর্টটি অবস্থিত।

 

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দেশে আরো তিনটি মেরিন একাডেমি স্থাপন করা হবে

 

ঢাকা, ২১ ভাদ্র (৫ সেপ্টেম্বর):  

 

বরিশাল, রংপুর, সিলেট, পাবনা ও চট্টগ্রাম মেরিন একাডেমি মিলিয়ে দেশে মোট পাঁচটি মেরিন একাডেমি রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী আরো তিনটি মেরিন একাডেমি স্থাপন করা হবে। মেরিন একাডেমিগুলো দক্ষ নাবিক তৈরি করতে পারবে। বাংলাদেশ মেরিন একাডেমির ৫৪তম ব্যাচ থেকে সদ্য পাস করা ৩৫৯ জনের চাকুরি দেশি-বিদেশি জাহাজে হচ্ছে। ফিমেল ক্যাডেটরা আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া ও সিঙ্গাপুরের জাহাজে নিয়োগ লাভ করেছে। দেশে আরো দক্ষ নাবিক তৈরি করতে পারলে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা আয় হবে।

আজ নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ মেরিন একাডেমি, চট্টগ্রাম, বরিশাল, রংপুর, সিলেট এবং পাবনার উন্নয়ন, আর্থিক ও প্রশাসনিক সংক্রান্ত বৈঠকে এসব তথ্য জানানো হয়। নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ মোস্তফা কামালসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এবং মেরিন একাডেমির কমান্ডেন্টগণ জুম সভায় এসময় উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে নতুন চারটি মেরিন একাডেমির জনবল নিয়োগ, বাজেট, সিমুলেটর ক্রয়, জমি অধিগ্রহণসহ অন্যান্য বিষয়ে আলোচনা হয়। সভায় জানানো হয়, চারটি নতুন মেরিন একাডেমি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটির এফিলিয়েশন পেয়েছে।

 

প্রবাসবন্ধু হটলাইন ‘16135’ চালু

ঢাকা, ২১ ভাদ্র (৫ সেপ্টেম্বর) :

বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও ঋণ সহযোগিতার জন্য বিভিন্ন তথ্য, প্রবাসীকর্মী ও তাদের পরিবারের বিভিন্ন সমস্যা সমাধান এবং প্রয়োজনীয় সহযোগিতার জন্য প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড ‘16135’ টোল ফ্রি নম্বর দিয়ে ‘প্রবাস বন্ধু কল সেন্টার’ নামে হটলাইন চালু করেছে। 

সংশ্লিষ্ট সকলে বিনা খরচে কল করে যে কোনো সময় (24/7) এই কল সেন্টার থেকে তথ্য সেবা পেতে পারেন। এছাড়া বিদেশ থেকে +8809610102030 নম্বরে এই সেবা পাওয়া যাবে। 

 

৪ সেপ্টেম্বর এক নজরে বাংলাদেশ

 

বাংলাদেশে নবায়নযোগ্য জ্বালানির অন্যতম উৎস হিসেবে বায়ুর আকার দিনে দিনে আরো বড় হবে : বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ২০ ভাদ্র (৪ সেপ্টেম্বর) :

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বাংলাদেশে নবায়নযোগ্য জ্বালানির অন্যতম উৎস হিসেবে বায়ুর আকার দিনে দিনে আরো বড় হবে। উপকূলীয় অঞ্চলসহ দেশের ৯ টি স্থানে বায়ু বিদ্যুতের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের উদ্দেশ্য বায়ু প্রবাহের তথ্য উপাত্ত (ডেটা) সংগ্রহ করে  Wind Mapping কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়েছে। সার্বিক উপর্যুক্ততা যাচাই করে বায়ু বিদ্যুৎ প্রকল্প গ্রহণ করা হবে।

আজ মংলায় ৫৫ মেগাওয়াট বায়ুভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বিদ্যুৎ ক্রয়চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে যদিও বায়ু থেকে মাত্র ২­৯ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়, ৩টি প্রকল্পের মাধ্যমে ১৪৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের কাজ চলমান, ৫টি প্রকল্পের অধীনে আরো ২৩০ মেগাওয়াট বায়ু বিদ্যুৎ প্রক্রিয়াধীন, তবুও বায়ুভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের আকার আরো বড় হবে। বাগেরহাট, মোংলায় স্থাপিত হতে যাওয়া ৫৫ মেগাওয়াট বায়ু বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ নবায়নযোগ্য জ্বালানির পথে আরো একধাপ এগিয়ে গেল। পরিবেশ রক্ষার পাশাপাশি এধরনের প্রকল্প বাংলাদেশের জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিতেও শক্তিশালী ভূমিকা রাখবে।

আমেরিকার ন্যাশনাল রিনিউএবল এনার্জি ল্যাবরেটরি (NREL) প্রদত্ত প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে দেখা যায়, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা বিশেষত খুলনার দাকোপ, চট্টগ্রামের আনোয়ারা এবং চাঁদপুরের নদী মোহনার এলাকাসমূহে ১০০ মিটার উচ্চতায় বাতাসের গড়বেগ ৬ মিঃ/সেঃ এর বেশি যা বায়ু বিদ্যুৎ উৎপাদনে অত্যন্ত সম্ভাবনাময়।

চুক্তিতে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের  পক্ষে বোর্ডের সচিব গোলাম রাব্বানী ও মোংলা গ্রিণ পাওয়ার লিমিটেডের পক্ষে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক Xu Wentao স্বাক্ষর করেন। ২০ বছর মেয়াদী এই চুক্তিতে প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের মূল্য ১৩ দশমিক ২০ সেন্ট। চুক্তি স্বাক্ষরের ২৪ মাসের মধ্যে প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে হবে।

বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের  চেয়ারম্যান মোঃ মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুঠানে অন্যান্যের মাঝে বিদ্যুৎ সচিব মোঃ হাবিবুর রহমান ও মোংলা গ্রিণ পাওয়ার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক Xu Wentao বক্তব্য রাখেন।

 

বিএনপির আন্দোলন মানে পুলিশকে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ আর গণ্ডগোলের চেষ্টা  : তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী

ঢাকা, ২০ ভাদ্র (৪ সেপ্টেম্বর) :

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহ্‌মুদ বলেছেন, ‘বিএনপি’র আন্দোলনের নমুনা হলো, আন্দোলন করতে গিয়ে নিজেরা নিজেরা মারামারি করা, পুলিশের ওপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করা, সারাদেশে গণ্ডগোল করার অপচেষ্টা চালানো।’

মন্ত্রী আরো বলেন, ‘নামসর্বস্ব যেসব রাজনৈতিক দলের সাথে তারা সংলাপ করেছে, সেগুলোর বাস্তবিক অর্থে কোনো অস্তিত্ব নেই, আছে শুধু সাইনবোর্ড। তারা এই সমস্ত দল নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করবে বলে ঘোষণাও দিয়েছে। ২০১৮ সালের নির্বাচনের আগেও এরকম একটি ঐক্য তারা করেছিল যার ফলাফল হচ্ছে নির্বাচনে বিএনপির পাঁচটি আসন। এ সব দলকে নিয়ে আন্দোলন করলে অতীতে যেমন জনগণ সাড়া দেয়নি, এবারও দেবে না।’

আজ রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে সাংবাদিকদের বিএনপির আন্দোলন নিয়ে প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ সব কথা বলেন।

নির্বাচনের মাঠ থেকে বিএনপিকে সরানোর চেষ্টা হচ্ছে কি না সে প্রশ্নের জবাবে ড. হাছান বলেন, ‘নির্বাচনের মাঠ থেকে তো কেউ কাউকে সরাতে পারে না, নির্বাচন করবে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনের মাঠ থেকে ২০১৪ সালে বিএনপি পালিয়ে গিয়েছিল এবং ২০১৮ সালে নির্বাচনের মাঠ থেকে পালিয়ে গিয়ে পরে নির্বাচনের ট্রেনের পাদানিতে চড়ে নির্বাচনে গিয়েছিল। তো এবার তারা নির্বাচনের ট্রেনের পাদানিতে চড়বেন, না কি ট্রেনে চড়বেন সেই সিদ্ধান্ত তাদেরই নিতে হবে। আমরা চাই বিএনপি নির্বাচনে আসুক, তাদের জনপ্রিয়তা যাচাই করুক।’

বিএনপির তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিকে আবারো সম্পূর্ণ নাকচ করে দিয়ে সম্প্রচার মন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচন হয় নির্বাচন কমিশনের অধীনে। নির্বাচন কমিশন স্বাধীন কমিশন। আর সংবিধান অনুযায়ী অন্যান্য গণতান্ত্রিক দেশে বিশেষ করে সংসদীয় গণতন্ত্রের দেশ ভারত, জাপান, অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাজ্য, কন্টিনেন্টাল ইউরোপের বিভিন্ন দেশে যে সরকার দেশ পরিচালনা করছিল সেই সরকারই নির্বাচনকালীন সরকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে, আমাদের দেশেও তাই হবে। অন্য কোনো বায়না ধরে কোনো লাভ নেই। মির্জা ফখরুল সাহেবকে তাদের কর্মীরা যেহেতু সাড়া দিচ্ছে না সেজন্য তাকে গরম বক্তৃতা দিতে দেখা যাচ্ছে।’

এর আগে মন্ত্রী আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ উপকমিটি আয়োজিত তিন দিনব্যাপী ‘টেকসই উন্নয়নে পরিবেশ সুরক্ষা বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন (International Conference on Environmental Protection for Sustainable Development- ICEPSD-2022)-এর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা দেন।

‘সবুজ বাংলাদেশ-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ’ (Green Bangladesh-Prosperous Bangladesh) প্রতিপাদ্য নিয়ে এ সম্মেলনের সমাপনীতে ড. হাছান বলেন, সবুজ বাংলাদেশ বিনির্মাণের জন্য প্রয়োজন মানুষকে উদ্বুদ্ধ করা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৮১ সালে দেশে ফিরেই পরিবেশ রক্ষার কাজে হাত দেন। ১৯৮২ সালে কৃষক লীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির মাধ্যমে সারাদেশে বনায়ন শুরু করেন। আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ পরিবেশ রক্ষা ও জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবিলায় অগ্রণী ভূমিকার জন্য সারাবিশ্বে সুপরিচিত।

বিশেষ অতিথি নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই দেশে প্রথম পরিবেশ সুরক্ষা ও বনায়ন নিয়ে কাজ শুরু করেন এবং প্রথম রাজনৈতিক দল হিসেবে পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদকের পদ প্রবর্তন করেন। এ বিষয়ে দলের প্রথম সম্পাদক ছিলেন বর্তমান তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, যিনি এক দশক ধরে অত্যন্ত যত্নের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন।

বিশেষ অতিথি পরিবেশ উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার বলেন, আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ উপকমিটির এই নিয়মিত আয়োজন যেমন দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে পরিবেশ সচেতনতা তৈরি করছে, তেমনি দেশ-বিদেশেও পরিবেশ সুরক্ষায় বাংলাদেশের  অগ্রণী অবস্থান ও কর্মকাণ্ড তুলে ধরছে।

সম্মেলনের আয়োজক উপকমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. খন্দকার বজলুল হকের সভাপতিত্বে অধ্যাপক ড. নাসরিন আহমদ, অধ্যাপক ড. আইনুন নিশাত সম্মানিত অতিথি, অধ্যাপক ড. মোঃ আফতাব আলী শেখ স্বাগত ও আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন সমাপনী বক্তা হিসেবে সভায় বক্তব্য রাখেন।

 

 

গীতিকার ও চলচ্চিত্রকার গাজী মাজহারুল আনোয়ারের মৃত্যুতে তথ্যমন্ত্রীর শোক

ঢাকা, ২০ ভাদ্র (৪ সেপ্টেম্বর) :

জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত গীতিকার ও চলচ্চিত্রকার গাজী মাজহারুল আনোয়ারের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহ্‌মুদ।

আজ রাজধানীর বারিধারায় আকস্মিক অসুস্থতায় গাজী মাজহারুল আনোয়ারের (৭৯) শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগের সংবাদে শোকাহত মন্ত্রী প্রয়াতের আত্মার শান্তিকামনা করেন এবং তার শোকাহত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহ্‌মুদ তাঁর শোকবার্তায় বলেন, ‘জীবনভর সংগীত ও কণ্ঠ সাধনার যে অনন্য দৃষ্টান্ত তিনি স্থাপন করেছেন, তা বিশ্বের সংগীতজগতে বিরল। তার অসংখ্য পুরস্কার ও সম্মাননার চেয়েও মানুষের ভালোবাসা তার জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জন। তার শিল্পীসত্তার মৃত্যু নেই।’

ড. হাছান বলেন, ‘জয় বাংলা, বাংলার জয়’, একতারা তুই দেশের কথা বল রে এবার বল’ এমন অসংখ্য কালজয়ী গানের রচয়িতা গীতিকবি সংঘের আজীবন সদস্য মাজহারুল আনোয়ার ২০০২ সালে একুশে পদক এবং ২০২১ সালে স্বাধীনতা পুরস্কার লাভ করেন।’

পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, একাধিক বাচসাস পুরস্কারসহ গাজী মাজহারুল আনোয়ারের অর্জিত পুরস্কারের সংখ্যা ১১০ টি। দীর্ঘ ৬০ বছরের সংস্কৃতিসেবায় তিনি ২০ হাজারের বেশি গান রচনা করেছেন। বিবিসি বাংলার জরিপে সর্বকালের সেরা ২০টি বাংলা গানের তালিকায় তার লেখা তিনটি গান রয়েছে।

 

 

বাংলাদেশ রিহ্যাবিলিটেশন কাউন্সিলের কার্যক্রম গতিশীল করা হচ্ছে : সমাজকল্যাণ মন্ত্রী

 

ঢাকা, ২০ ভাদ্র (৪ সেপ্টেম্বর) :

সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ বলেছেন, বর্তমান সরকার পক্ষাঘাতগ্রস্ত ও প্রতিবন্ধীদের পুনর্বাসনের লক্ষ্যে পেশাজীবীদের স্বীকৃতি ও সেবার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশ রিহ্যাবিলিটেশন কাউন্সিল আইন ২০১৮ প্রণয়ন করেছে। আইনের আলোকে রিহ্যাবিলিটেশন কাউন্সিল গঠন করা হয়েছে। এ কাউন্সিলের কার্যক্রম গতিশীল করা হচ্ছে।

আজ রাজধানীর তেজগাঁওস্থ দৈনিক সমকাল পত্রিকার কার্যালয়ে বিশ্ব ফিজিওথেরাপি দিবস উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ ফিজিওথেরাপি কাউন্সিল আয়োজিত গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে অনন্য অবস্থানে পৌঁছেছে। দেশের প্রতিটি সেক্টরে উন্নয়ন হয়েছে। এখন সময় কথার নয়, কাজের মাধ্যমে এগিয়ে যাওয়ার। ফিজিওথেরাপি পেশা সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিকভাবে সেবা প্রদানের জন্য আহ্বান জানান তিনি।

বাংলাদেশ ফিজিওথেরাপি এসোসিয়েশনের সভাপতি ডাঃ সনজিত কুমার চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মোঃ এনামুর রহমান।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ রিহ্যাবিলিটেশন কাউন্সিল আইন ২০১৮ এর আলোকে ইতোমধ্যে কাউন্সিল গঠন করা হয়েছে। আইন অনুযায়ী বাংলাদেশ রিহ্যাবিলিটেশন কাউন্সিল বিধিমালা এবং বাংলাদেশ রিহ্যাবিলিটেশন কাউন্সিলের কর্মচারী চাকুরি প্রবিধানমালা প্রণয়নের কার্যক্রম চলমান আছে।

 

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশ যথাসাধ্য চেষ্টা করছে : পরিবেশমন্ত্রী

ঢাকা, ২০ ভাদ্র (৪ সেপ্টেম্বর) :

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন বলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকার তার সীমিত সম্পদ দিয়ে যথাসাধ্য চেষ্টা করছে। আমরা আমাদের নিজস্ব সম্পদ থেকে বাংলাদেশ ক্লাইমেট চেইঞ্জ ট্রাস্ট তহবিলে ৪৮০ মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ করেছি। তাছাড়া, আমরা আমাদের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির অংশ হিসেবে গত সাত বছরে জলবায়ু সংক্রান্ত ব্যয় দ্বিগুণ করেছি। আমাদের এনডিসির পাশাপাশি আমাদের ন্যাপকেও বাস্তবায়ন করতে হবে।

আজ বাংলাদেশে নিযুক্ত পাকিস্তানের হাইকমিশনার ইমরান আহমেদ সিদ্দিকি পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিনের সাথে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাক্ষাৎকালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এসময় পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব ডক্টর ফারহিনা আহমেদ, অতিরিক্ত সচিব মোঃ মিজানুল হক চৌধুরী, যুগ্ম-সচিব জাকিয়া আফরোজ, উপসচিব ধরিত্রী কুমার সরকার এবং পাকিস্তানের ডেপুটি হাইকমিশনার কামার আব্বাস খোখার উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, উন্নত এবং বৃহত্তর নির্গমনকারী দেশগুলো আমাদের সকলকে ক্রমবর্ধমান বিপদের মধ্যে ফেলে ১.৫ সেলসিয়াস তাপমাত্রার লক্ষ্যের সাথে সঙ্গতি রেখে তাদের নির্গমন কমাতে যথেষ্ট আন্তরিক নয়। তিনি মিশরের শারম আল-শেখ-এ আসন্ন কপ ২৭ এর সময় জলবায়ু পরিবর্তন সমস্যা সমাধানের জন্য উন্নত ও উন্নয়নশীল সব পক্ষকে একসঙ্গে কাজ করার জন্য আহ্বান জানান। তিনি বলেন, প্রতি বছর ১০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের লক্ষ্য পূরণের জন্য উন্নত দেশগুলোকে অবশ্যই অর্থ সরবরাহ বাড়াতে হবে। বাংলাদেশ ও পাকিস্তান একই অঞ্চল ও গোষ্ঠীভুক্ত হওয়ায় আসন্ন কপ ২৭ এর আলোচনা প্রক্রিয়ায় পাকিস্তানেরও একই অবস্থান থাকা উচিত।

পাকিস্তানি হাইকমিশনার জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশের বিভিন্ন উদ্যোগের প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য দায়ী না হলেও বাংলাদেশের মতো পাকিস্তানও এর বিরূপ প্রভাব মোকাবিলা করছে। তিনি আরো বলেন, এর জন্য ধনী দেশগুলোকে অবশ্যই দায় নিতে হবে। এক্ষেত্রে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান একই ধরনের দাবি তুলতে পারে। তিনি এসময় জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত গবেষণা, অভিজ্ঞতা বিনিময়, একই সাথে প্রকল্প বাস্তবায়নে একযোগে কাজ করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব সংশ্লিষ্ট কার্যক্রম, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, কৃষি, বিশুদ্ধ পানি ইত্যাদি ক্ষেত্রে অভিজ্ঞতা বিনিময়ের প্রস্তাব করেন।

 

Bangladesh reiterated her deep concern over falling mortar shells inside Bangladesh from Myanmar

 

Dhaka, 4 September:

 

Bangladesh reiterated her deep concern over falling mortar shells inside Bangladesh territory, indiscriminate aerial firing from Myanmar in the bordering areas, and air space violations from Myanmar. According to the latest report, on 3 September 2022 two mortar shells fell inside Bangladesh between BP 40 and 41. The Myanmar Ambassador in Bangladesh U Aung Kyaw Moe was asked to visit the Ministry of Foreign Affairs today to meet the Director General of Myanmar Wing. During the meeting, the Ambassador was also told that such activities are of grave threat to the safety and security of the peace-loving people, violation of border agreement between Bangladesh and Myanmar and contrary to the good neighborly relationship. The Ambassador was also urged to ensure that no trespassing of the internally displaced Myanmar Residents takes place from Rakhine. It was also stressed that a safe, secure and conducive environment in the place of their origin in Rakhine is essential for sustainable and voluntary repatriation of the displaced Rohingyas from Bangladesh. A diplomatic note was handed over to him today in this regard. The Ambassador assured to convey Bangladesh Government’s strong position on these incidents to his Headquarters.

Mentionable, earlier mortar shells were found inside Bangladesh launched using Myanmar territory. The Myanmar Ambassador was asked to come to the Ministry on 21 August and 28 August 2022 and protest notes were handed over to him conveying Bangladesh’s grave concerns. The Bangladesh Embassy in Yangon also raised the issue with the Ministry of Foreign Affairs of Myanmar with much importance.

 

The new Ambassador of Iran calls on State Minister for Foreign Affairs Shahriar Alam

 

Dhaka, 4 September:

 

The new Ambassador of Iran Mansour Chavoshi paid a courtesy call on State Minister for Foreign Affairs Md. Shahriar Alam today at his office in the Ministry of Froeign Affairs in Dhaka.

 

The State Minister welcomed the new Ambassador of Iran and congratulated him on his appointment as Ambassador of Iran to Bangladesh. He mentioned that all possible support will be extended to the Ambassador during his tenure in Bangladesh. Bangladesh and Iran enjoy excellent relations in bilateral as well as in multilateral forums. The people of Bangladesh and Iran have strong historical and cultural bondage. There are ample scopes to further strengthen economic and trade and investment relations between the two countries. He requested for exchange of high level visits and more engagements in medical, food processing, ICT and energy sectors.

 

The Ambassador of Iran thanked the State Minister for receiving him at his office. He said that the Government of Iran is sincere in enhancing economic relations with Bangladesh. He expressed that he is very happy being Ambassador of Iran in Bangladesh. He said that Iran is ready to cooperate with Bangladesh in the medical, engineering and energy sector for mutual benefit of the people of Bangladesh and Iran. The State Minister briefed the Ambassador about the   impressive economic growth of Bangladesh under the dynamic leadership of Prime Minister Sheikh Hasina. He expressed that there is a lot of opportunity for Iran to invest in the Special Economic Zones of Bangladesh. The Ambassador highly appreciates the Government of Bangladesh for its continued economic success and social development.

 

 

বিদেশ নয়, আগে নিজের দেশ ভ্রমণের পরামর্শ শিক্ষামন্ত্রীর

ঢাকা, ২০ ভাদ্র (৪ সেপ্টেম্বর) :

আগে বিদেশ নয়, নিজের দেশ ভ্রমণের পরামর্শ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, এক জীবনে নিজের এই দেশের (বাংলাদেশ) সব বৈচিত্র্য দেখে শেষ করা যাবে না। তাই আগে নিজের দেশের ৫৬ হাজার বর্গমাইলের বৈচিত্র্য দেখা উচিত। অথচ ভ্রমণ শুনলেই আমাদের মনে হয় বিদেশ ভ্রমণ।

আজ মোহাম্মদপুর রেসিডেনশিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজে আয়োজিত ‘ঘুরে দেখো বাংলাদেশ উইথ ট্যালেন্ট ট্যুরিস্ট কম্পিটিশন’ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, টেলিভিশন ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বদৌলতে আমরা হাওর অঞ্চলের অসম্ভব সুন্দর দৃশ্যগুলো দেখতে পাই। চরের জীবনযাত্রা ও পরিবেশ বৈচিত্র্যময়। আমাদের সুন্দরবন আছে, আরো বনাঞ্চল আছে, চা বাগান আছে। ঢাকা শহর থেকে একটু বেরুলেই বিস্তীর্ন সবুজে চোখ জুড়িয়ে যায়। তার সঙ্গে সারা দেশে নানান জায়গায় অসংখ্য পুরাকীর্তি ছড়িয়ে আছে, আগের জমিদার, রাজাদের বাড়ি-ঘর আছে। যদিও বেশি ভালোভাবে সংরক্ষিত হয়নি। তবে অনেকগুলো ভালোভাবে সংরক্ষিত আছে। আমাদের মন্দির, মসজিদ আছে যেগুলোতে অনেক পর্যটক যান। কান্তজীর মন্দির কী অসাধারণ। টেরাকোটার কাব্য বলা হয়। না দেখলে বর্ণনা করে বোঝানো সম্ভব নয়।

মন্ত্রী আরো বলেন, দেশের নানান জায়গায় সুন্দর সুন্দর দিঘি আছে। তারপর আমাদের দেশে বিভিন্ন উৎসব আছে, বারো মাসে তের পার্বণ, আছে বিভিন্ন খাবারের বৈচিত্র্য। পাহাড়ি এলাকায় পোশাকের বৈচিত্র্য আছে। এত কিছু দেখার আছে, যা এক জীবনে দেখা সম্ভব নয়।

 

Kuwaiti Ambassador calls on State Minister Shahriar Alam

 

Dhaka, 20 Bhadra (4 September) :

The new Ambassador of the State of Kuwait to Bangladesh Faisal Mutlaq Al Adwani paid a courtesy call on with the State Minister for Foreign Affairs Md. Shahriar Alam today at his office in the Ministry of Foreign Affairs in Dhaka.

The State Minister welcomed the Envoy  in his office and congratulated him on  his assumption of new assignment as Ambassador to Bangladesh. He expressed happiness at the excellent bilateral relations between Bangladesh and Kuwait in the political, economic, defense, manpower and trade fields and urged the Ambassador to draw initiatives to strengthen the relationship by exploring new and emerging areas of collaboration including energy and health sectors. He then highlighted some recent transformations that have taken place in Bangladesh under the leadership of Prime Minister Sheikh Hasina in the socio-economic sectors including the construction of the Padma Bridge, the Karnafulli tunnel, Metro-rail projects; the Express Highway etc. He also urged the Ambassador to undertake visits to various places in the country IT Parks, Economic Zones, etc. to look for investment opportunities in Bangladesh. Upon enquiry of the Ambassador on the Rohingya issue, the State Minister apprised him of the current state of the problem and sought Kuwaiti government’s political and economic support for solving the Rohingya crisis.

The Ambassador commended Bangladesh government’s quest for development and peace in its strides for economic emancipation and appreciated the capable and courageous leadership of the Prime Minister. The Ambassador conveyed the Kuwaiti government’s eagerness to work more closely with Bangladesh in areas of mutual interests.

The Ambassador sought support and cooperation from the State Minister in discharging responsibilities. The State Minister assured him all possible support and cooperation. Earlier, the Ambassador met the Foreign Secretary (Senior Secretary) in his office where they had discussed and exchanged views on bilateral issues of mutual interests.

 

 

কোভিড-১৯ সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন

 

ঢাকা, ২০ ভাদ্র (৪ সেপ্টেম্বর) :

 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)-এর তথ্যানুযায়ী গতকাল শনিবার সকাল ৮টা থেকে আজ রবিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২৩০ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ পাওয়া গেছে। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ৪ দশমিক ৯৩ শতাংশ। এ সময় ৪ হাজার ৬৬৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

 

গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ১ জন। এ পর্যন্ত ২৯ হাজার ৩২৮ জন করোনায় মৃত্যুবরণ করেছেন। করোনাভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৫৭ হাজার ২৭১ জন।

 

বহুমুখী পাটপণ্যের রপ্তানি বাজার সম্প্রসারণে আরো প্রদর্শনী করার নির্দেশ বস্ত্র ও পাট মন্ত্রীর

 

 

ঢাকা, ২০ ভাদ্র (৪ সেপ্টেম্বর) :

 

বহুমুখী পাটপণ্যের রপ্তানির বাজার সম্প্রসারণ করতে দেশে ও বিদেশে বেশি বেশি প্রদর্শনী করার নির্দেশ দিয়েছেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, বীরপ্রতীক।

আজ রাজধানীর মতিঝিলস্থ করিম চেম্বারে জুট ডাইভারসিফিকেশন প্রমোশন সেন্টার (জেডিপিসি) কর্তৃক আয়োজিত পাঁচ দিনব্যাপী বহুমুখী পাটপণ্য মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। বস্ত্র ও পাট সচিব মোঃ আব্দুর রউফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেডেপিসির নির্বাহী পরিচালক রেখা রাণী বালো।

মন্ত্রী বলেন, জুট ডাইভারসিফিকেশন প্রমোশন সেন্টার (জেডিপিসি)-এর মাধ্যমে পাটপণ্যের ব্যবহার বৃদ্ধির পাশাপাশি সরকার বহুমুখী পাটজাত পণ্যের উদ্ভাবন, ব্যবহার সম্প্রসারণে গুরুত্বারোপ করেছে।  ইতোমধ্যে, উদ্যোক্তাগণ ২৮২ প্রকার দৃষ্টিনন্দন পাটপণ্য উৎপাদন করছেন-যার অধিকাংশই বিদেশে রপ্তানি করা হচ্ছে। বহুমুখী পাটজাত পণ্যকে জনপ্রিয় করতে প্রচার প্রচারণাসহ বিদেশে বিভিন্ন মেলার আয়োজন করার কাজ চলমান রয়েছে। এসব মেলা পাটজাত পণ্য উৎপাদনকারী, বিপণনকারী, ব্যবহারকারী এবং বিদেশি ক্রেতাদের মধ্যে অধিক যোগাযোগ স্থাপনে সহায়ক হবে। Expo-2020, Dubai সহ সকল আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ বাণিজ্য মেলায় বহুমুখী পাটপণ্যের প্রতি মানুষের ব্যাপক আগ্রহ লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী জেডিপিসির কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘যতো পারেন পাটপণ্যের মেলার আয়োজন করতে হবে। এতে দেশে পাটপণ্যের চাহিদা যেমন বাড়বে তেমনি এখাতের উদ্যোক্তাদের বিক্রিও বাড়বে। এতে করে তারা দেশের বাইরেও পাটপণ্য রফতানি করতে উৎসাহী হবে । এবছর মেলা কয়টি করবেন আমাদের জানাবেন। মেলা হলে উদ্যোক্তারা লাভবান হবে। অনেক উদ্যোক্তাই দেশের বাইরে যেতে পারে না। মেলা হলে তারা লাভবান হবে।’

তিনি বলেন, পাটখাতে সরকারের নানামুখী কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের ফলে জাতীয় অর্থনীতিতে এখাতটি অসামান্য অবদান রাখছে। যদিও কালের পরিক্রমায় কৃত্রিম তন্তু (পলিথিন)-এর ব্যবহার বৃদ্ধি পেলেও বর্তমান টেকসই উন্নয়নের যুগে বিশ্বব্যাপী পরিবেশবান্ধব পাট ও পাটপণ্যের ব্যাপক চাহিদা তৈরি হয়েছে। পাশাপাশি বর্তমান সরকারের চলমান পৃষ্ঠপোষকতার কারণে পাটখাতের হৃত ঐতিহ্যকে পুনরুদ্ধার এবং অধিক সমৃদ্ধশালী করা সক্ষম হয়েছে।

করিম চেম্বারে চলমান পাঁচদিনের এই প্রদর্শনী শেষ হবে আগামী ৮ সেপ্টেম্বর। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত এই মেলা চলবে। এবার মেলায় ৩৩টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। তারা বহুমুখী পাটপণ্যের পসরা সাজিয়েছেন। বহুমুখী পাটপণ্যের উদ্যোক্তাগণ ২৮২ প্রকার দৃষ্টিনন্দন পাটপণ্য উৎপাদন করছেন। প্রদর্শনী পাটের প্রায় সব পণ্য রয়েছে।

 

গাজী মাজহারুল আনোয়ারের মৃত্যুতে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর শোক

ঢাকা, ২০ ভাদ্র (৪ সেপ্টেম্বর) :

স্বাধীনতা ও একুশে পদকপ্রাপ্ত কিংবদন্তি গীতিকার গাজী মাজহারুল আনোয়ার এর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ।

প্রতিমন্ত্রী আজ এক শোকবার্তায় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

শোকবার্তায় সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, গাজী মাজহারুল আনোয়ার ছিলেন একাধারে চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক, গীতিকার ও সুরকার। ‘জয় বাংলা, বাংলার জয়’ গানের মত কালজয়ী গানসহ স্বাধীনতা ও দেশপ্রেম নিয়ে তিনি অসংখ্য জনপ্রিয় গান লিখেছেন। জীবদ্দশায় ২০ হাজারের বেশি গান রচনা করেছেন তিনি। বিবিসি বাংলা তৈরিকৃত সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বিশটি বাংলা গানের তালিকায় রয়েছে তাঁর লেখা তিনটি গান। তাঁর মৃত্যুতে দেশের সংগীত ও চলচ্চিত্রসহ সংস্কৃতি অঙ্গনে যে শূন্যতার সৃষ্টি হয়েছে তা সহজে পূরণ হবার নয়। তিনি তাঁর সৃষ্টি ও কর্মের মধ্য দিয়ে সংস্কৃতিপ্রেমী বাঙালির হৃদয়ে চিরজাগরুক হয়ে থাকবেন।

উল্লেখ্য, পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ী কিংবদন্তি গীতিকার গাজী মাজহারুল আনোয়ার (৭৯) আজ সকালে রাজধানীর একটি হাসপাতালে নেয়ার পথে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

 

৫ সেপ্টেম্বর থেকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে মাস্টার্স প্রোগ্রামে ভর্তি শুরু

ঢাকা, ২০ ভাদ্র (৪ সেপ্টেম্বর) :

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে মাস্টার্স (নিয়মিত) প্রোগ্রামে অনলাইন ভর্তি কার্যক্রম ৫ সেপ্টেম্বর বিকাল ৪টা থেকে শুরু হবে। এ ভর্তি কার্যক্রম চলবে ২০ সেপ্টেম্বর রাত ১২টা পর্যন্ত। এ শিক্ষাবর্ষের ক্লাস ১৬ অক্টোবর থেকে শুরু হবে।

আগ্রহী প্রার্থীরা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট (www.nu.ac.bd/admissions) থেকে অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করতে পারবে।

আজ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

 

বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-জাপান সম্পর্কের ভিত তৈরি করেছেন : ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

 

ঢাকা, ২০ ভাদ্র (৪ সেপ্টেম্বর) :

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, বাংলাদেশ জাপান সম্পর্ক তুলনাহীন। বঙ্গবন্ধু ১৯৭৩ সালে জাপান সফরের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ-জাপান সম্পর্কের ভিত তৈরি করেছেন। পশ্চিমা দেশ বিশেষ করে ইউরোপ-আমেরিকা থেকে শিল্প বিপ্লবের সূচনা হয়। এশিয়া অঞ্চলে জাপান শিল্প বিপ্লবে ভূমিকা রেখে আমাদের গর্বিত করেছে। বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু জাপানের কাছে শেখার অনেক কিছু আছে বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন।

মন্ত্রী গতকাল রাতে ঢাকায় ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে জাপান-বাংলাদেশ সম্পর্কোন্নয়নে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ হকস বে অটোমোবাইলস লিমিটেডের স্বত্বাধিকারী আবদুল হকের জাপান সম্রাটের অর্ডার অব দ্য রাইজিং সান পুরস্কার অর্জন উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

সরকার এবং বেসরকারি খাত, যৌথ সহযোগিতা সমৃদ্ধ জাতি বিনির্মাণে ভূমিকা রাখার ক্ষেত্রে আবদুল হক অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন বলে উল্লেখ করেন মন্ত্রী। কম্পিউটারের ওপর থেকে ১৯৯৮-৯৯ অর্থবছরে ভ্যাট-ট্যাক্স প্রত্যাহারে তৎকালীন এফবিসিসিআই নেতা আবদুল হকের ভূমিকা মন্ত্রী গভীর কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করেন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে জাপানের রাষ্টদূত ইতো নাওকি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

রাষ্ট্রদূত নাওকি ১৯৭৩ সালে বঙ্গবন্ধুর জাপান সফরকে দুদেশের সম্পর্কোন্নয়নে ঐতিহাসিক ভূমিকা তুলে ধরেন। তিনি বাংলাদেশের আড়াই হাজারে জাপানি ইপিজেড প্রতিষ্ঠার বাংলাদেশে জাপানি বিনিয়োগের বিষয়ে সবিস্তারে তুলে ধরেন।

 

Read us@googlenews

Social

More News
© Copyright: 2020-2022

Bangladesh Beyond is an online version of Fortnightly Apon Bichitra 

(Reg no: DA 1825)

Developed By Bangladesh Beyond