[Valid RSS]
June 29, 2022, 3:31 pm
Headlines
Develop a national framework for projects implementation efficiency & governance: economists Samsung smartphones are available with attractive offers for this Eid Technical Strategic Partner Huawei awarded by bKash প্রাথমিকের শিক্ষকদের অনলাইনে বদলীর কার্যক্রম উদ্বোধন Momen to lead Bangladesh in UN Ocean Conference পবিত্র ইদুল আজহা উপলক্ষ্যে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভা আগামীকাল Russia and West clash at UN Security Council Oxfam condemns G7 for ‘leaving millions to starve’ Continued arms supplies from US to Ukraine increase threat of further escalation : envoy ৩০ জন নারী উদ্যোক্তার অংশগ্রহণে চলছে আনিসুল হক কোহর্ট উদ্যোক্তা হাট Samsung introduces ‘Meet the Eid’ campaign ahead of Eid with sizzling offers British Council stages Noishobde ’71 BRAC Bank wins four VISA awards Sufferers of false allegation over Padma Bridge deserves compensation: Momen Japan to provide 165,989m Yen to Bangladesh for 3 projects HC orders to form commission to find conspirators against Padma Bridge ২৮ জুন এক নজরে বাংলাদেশ ২৮ জুন কোভিড-১৯ সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন New Canadian envoy calls on State Minister for Foreign Affairs কর্মক্ষম ‍যুবশক্তির কর্মসংস্থান না করা গেলে জনমিতিক লভ্যাংশের সুফল ভোগ করা যাবে না
Treanding
Develop a national framework for projects implementation efficiency & governance: economists Samsung smartphones are available with attractive offers for this Eid Technical Strategic Partner Huawei awarded by bKash প্রাথমিকের শিক্ষকদের অনলাইনে বদলীর কার্যক্রম উদ্বোধন Momen to lead Bangladesh in UN Ocean Conference পবিত্র ইদুল আজহা উপলক্ষ্যে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভা আগামীকাল Russia and West clash at UN Security Council Oxfam condemns G7 for ‘leaving millions to starve’ Continued arms supplies from US to Ukraine increase threat of further escalation : envoy ৩০ জন নারী উদ্যোক্তার অংশগ্রহণে চলছে আনিসুল হক কোহর্ট উদ্যোক্তা হাট Samsung introduces ‘Meet the Eid’ campaign ahead of Eid with sizzling offers British Council stages Noishobde ’71 BRAC Bank wins four VISA awards Sufferers of false allegation over Padma Bridge deserves compensation: Momen Japan to provide 165,989m Yen to Bangladesh for 3 projects HC orders to form commission to find conspirators against Padma Bridge ২৮ জুন এক নজরে বাংলাদেশ New Canadian envoy calls on State Minister for Foreign Affairs কর্মক্ষম ‍যুবশক্তির কর্মসংস্থান না করা গেলে জনমিতিক লভ্যাংশের সুফল ভোগ করা যাবে না Strengthen the Tobacco Control Law: ATMA

COVID-19 impacts adolescents in a multitude ways beyond education disruption : study

Bangladesh Beyond
  • Updated on Wednesday, June 1, 2022
  • 182 Impressed

COVID-19 impacts adolescents in a multitude ways beyond education disruption : study

 

Dhaka June 01 2022:

 

Long-term school closures during the COVID-19 pandemic crisis have impacted the life transitions of adolescents in a multitude of ways beyond disruption in education, finds a recent study on ‘Adolescent Girls’ Vulnerabilities and Transitions in the Context of COVID-19’.

Adolescents reportedly had to grapple with reduced educational aspirations, poorer psychosocial wellbeing, increased restrictions and control over social relations and mobility and pressures to start work.

The decisions made by parents and adolescents during COVID will influence their future life trajectories by determining their educational achievements, their reproductive health and also livelihood choices.

Findings from the study were shared at a Research Dissemination Event held on 1 June 2022, at the BRAC Centre Inn in Dhaka. The event was jointly organised by the BRAC Institute of Governance and Development (BIGD), BRAC University and the Rule of Law Programme, implemented by GIZ Bangladesh.

The research has been supported by the German Federal Ministry for Economic Cooperation and Development (BMZ) and the UK Foreign, Commonwealth and Development Office (FCDO).

This is a significant piece of research reflecting the urgency of time. Germany, for its part, has been proud to support this work, in a year where it celebrates 50 years of partnership with Bangladesh.

The mixed-method study, conducted during September to November 2021, aimed to shed light on women and girls’ access to justice in Bangladesh by analysing adolescent girls’ life transitions in the context of the COVID-19 pandemic.

According to the research, 35% of adolescents studied for 3-5 hours before the pandemic – which went down to 14% during COVID-19. While COVID-19 did not significantly affect drop-outs rates, at least 35% of the dropouts mentioned that COVID-19 had led to an unwillingness to study further, and another 16% said they could no longer afford it.

Although the study found little variation in the rate of early marriage before and after the pandemic, nearly 50% of the parents said that their decision to marry off their daughters was moderately or highly influenced by COVID-19.

Therefore, COVID-19 did encourage some households to take the decision to marry off their daughters as they felt social pressure to ensure that their daughters’ and their family’s honour would be protected.

Security considerations and perceived reputational risks proved more important than poverty for early marriage and withdrawal from school, according to the study. Security considerations, and not simply poverty, were also important in parental decisions to put boys to work in the context of school closure.

In his opening remarks, Dr. Imran Matin, Executive Director, BRAC Institute of Governance and Development (BIGD) contextualised the research, “The economic and school closure shock together created an overlapping risk and concerning dynamic which led to the deepening of existing vulnerabilities along with creating new ones.

Through our study and the discussion today, we look at what it means in terms of policy and program design. Tackling the economic distress and the importance of educational quality and school as a socialization platform emerges strongly as a policy priority.”

In his speech, the Chief Guest of the event, Md. Golam Sarwar, Secretary, Law and Justice Division, Ministry of Law, Justice & Parliamentary Affairs (MoLJPA) said, “There is a need to focus on recovery, and support human capability and wellbeing in a holistic sense, across policy areas.

The government, development partners and civil society can work together to create a more resilient and inclusive system, within which access to justice is a fundamental human right, regardless of gender and socioeconomic status.”

Speaking as Special Guests at the event, Ummey Kulsum, Joint Secretary (Opinion), Law and Justice Division, Ministry of Law, Justice and Parliamentary Affairs (MoLJPA) and National Project Director, GIZ Project, said, “The Government has clearly identified the COVID-19 recovery strategy and Gender Equality and Women Empowerment framework in its 8th FYP.

After hearing from the research team on the key findings, panellists and the audience, I am convinced that, the Gender Equality and Women Empowerment framework should become an integral part of the Covid recovery strategy. This will help to better respond to the issues raised in the study relating to women and girls.” 

Javed Patel, Deputy High Commissioner, British High Commission, Dhaka said that “BIGD’s research, supported by the UK Foreign, Commonwealth & Development Office and the German Federal Ministry for Economic Cooperation and Development, illustrates clearly how the pandemic has exacerbated challenges for adolescents.

Bringing both girls and boys back to school is going to be a huge task, with girls’ access to education in particular becoming even more precarious.

The UK Government’s newly launched International Development Strategy focuses on providing women and girls with the freedom they need to succeed and research like this is integral to helping us achieve this.”

“This year completes 50 years of German cooperation. Studies like these are at the core of development cooperation. The goal of development initiatives is to enable each and every one to take choices which allow them to live their lives to its full potential. This research looks at the way adolescents have been limited in their choices and possibilities in the face of COVID.” said Ms. Caren Blume, Deputy Head of Development Cooperation, German Embassy.

Dr. Angelika Fleddermann, Country Director, GIZ Bangladesh, said, “Adolescent research needs to play a role in shaping the future as over 32 million, that is 21% of Bangladesh’s population, are adolescents. This means that the future of Bangladesh lies in the hands of young people.

Taking timely decisions and making the right choices for girls and boys will determine the future trajectory of their lives and of Bangladesh’s future.”

After the presentation on key research findings, a panel discussion was held in the presence of distinguished guests, M M Mahamudullah, Additional Director (Social Safety Net Wing), Department of Social Services; Ms. Shima Moslem, Joint General Secretary, Bangladesh Mahila Parishad; Dr Safiqul Islam, Former Director, Education, BRAC and Dr. Jiniya Afroze, CLARISSA Country Coordinator, Terre des hommes (Tdh). The panel discussion was followed by an open and engaging discussion between the panelists and the audience.

The research was commissioned by GIZ-supported Rule of Law Programme, a joint initiative under the Ministry of Law Justice and Parliamentary Affairs (MoLJPA) and Ministry of Home Affairs (MoHA).

The programme is supported by the German Federal Ministry for Economic Cooperation and Development (BMZ) and the UK Foreign, Commonwealth & Development Office (FCDO).

BRAC Institute of Governance and Development (BIGD) is an independent, social science research and post-graduate teaching centre at BRAC University.

 

 

কিশোর-কিশোরীদের ভবিষ্যতের উপর কোভিড-১৯ মহামারী দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব বিস্তার করছে

 

ঢাকা ০১ জুন ২০২২ :

 

সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, কোভিড-১৯ মহামারীকালীন সংকটে দীর্ঘসময় স্কুল বন্ধ থাকায় কিশোর-কিশোরীদের জীবনে বিভিন্ন ধরনের পরিবর্তন এসেছে।

“অ্যাডোলেসেন্ট গার্লস ভালনারাবিলিটিজ অ্যান্ড ট্রানজিশান ইন দ্য কনটেক্সট অফ কোভিড-১৯” শীর্ষক এক গবেষণার ফলাফল উপস্থাপন অনুষ্ঠানে এমন তথ্য উঠে এসেছে।

কোভিড-১৯’র কারণে শিক্ষাগ্রহণে আগ্রহ হারিয়ে ফেলা, মনো-সামাজিক টানাপোড়ন, সহিংসতার ঝুঁকি বৃদ্ধি, প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার আগেই কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ- এমন বিভিন্ন পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে কিশোর-কিশোরীদের। কোভিডের সময়ে শিক্ষার ব্যাপারে অভিভাবক ও কিশোর-কিশোরীদের নেয়া সিদ্ধান্ত তাদের ভবিষ্যতের পথকে প্রভাবিত করবে। শুধু তাই নয়, তাদের জীবিকা এবং প্রজননস্বাস্থ্যও এর দ্বারা প্রভাবিত।   

০১ জুন, ২০২২-এ ঢাকার ব্র্যাক সেন্টার ইনে গবেষণার ফলাফল উপস্থাপন অনুষ্ঠানে এ বিষয়ে বিশদ তথ্য তুলে ধরেন বক্তারা।

ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অফ গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট (বিআইজিডি) এবং জিআইজেড’র রুল অ ল প্রোগ্রাম যৌথভাবে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। জার্মান ফেডারেল মিনিস্ট্রি ফর ইকোনমিক কো-অপারেশান অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (বিএমজেড) এবং ইউকে ফরেন, কমনওয়েলথ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অফিস (এফসিডিও)’র সহায়তায় গবেষণাটি পরিচালিত হয়েছে।

এই গুরুত্বপূর্ণ গবেষণাটি সময়ের চাহিদারই প্রতিফলন। বাংলাদেশের সাথে উন্নয়নের অংশীদারিত্বের পঞ্চাশ বছর পূর্তির মাহেন্দ্রক্ষণে জার্মানি এই গবেষণার সহযোগী হতে পেরে গর্বিত।   

মিশ্র পদ্ধতির এই গবেষণাটি করা হয়েছিলো ২০২১ সালের সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত। কোভিড-১৯’র সংকট কিশোর-কিশোরীদের জীবনে কিভাবে পরিবর্তন এনেছে তা বিশ্লেষণ করা ও ন্যায়বিচার প্রাপ্তিতে এদেশের নারী ও কিশোরীদের অবস্থা কেমন, বিশ্লেষণের মাধ্যমে তা বোঝা ছিলো উক্ত গবেষণার লক্ষ্য।  

গবেষণা বলছে, ৩৫% কিশোর-কিশোরী মহামারীর আগে ৩-৫ ঘণ্টা পড়াশোনা করতো। মহামারীর সময়ে কিশোর-কিশোরীদের এই হার ১৪ শতাংশে নেমে গেছে।

যদিও কোভিড-১৯ এর কারণে শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার হার খুব একটা বেশি নয় তবুও, অন্তত ৩৫% ঝরে পড়া শিক্ষার্থী জানিয়েছে, কোভিড-১৯ এর কারণে তারা লেখাপড়া ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছে। অন্যদিকে ১৬% ঝরে পড়া কিশোর-কিশোরী জানিয়েছে, তারা পড়াশোনার খরচই আর চালাতে পারছে না।    

মহামারীর আগে ও পরে বাল্যবিবাহের হারে সামান্য ব্যবধান হয়েছে বলেও গবেষণায় তথ্য পাওয়া গেছে। গবেষণায় অংশ নেয়া প্রায় ৫০% পিতামাতা জানিয়েছেন, মেয়েকে বিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্তের পেছনে কোভিড-১৯’র প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভূমিকা ছিলো।

মেয়েদের ও তাদের পরিবারের সম্মানকে সুরক্ষিত রাখতে দ্রুত বিয়ে দিতে হবে- কোভিডের সময়ে প্রতিনিয়ত এমন সামাজিক চাপের মুখে ছিল কিছু পরিবার। ফলে সেসব পরিবারের পিতামাতারা তাদের মেয়েদের বিয়ের বয়স হওয়ার আগেই বিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

সমীক্ষা অনুসারে, বাল্যবিবাহ এবং স্কুল ছেড়ে দেয়ার পেছনে দারিদ্র্যের চেয়ে নিরাপত্তা এবং পারিবারিক সম্মান হারানোর ঝুঁকি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। স্কুল বন্ধের প্রেক্ষাপটে ছেলেদের কাজে পাঠাতে অভিভাবকরা সিদ্ধান্ত নেন। সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে নিরাপত্তার বিবেচনা এবং কেবল দারিদ্র্যই গুরুত্বপূর্ণ ছিল না।

ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অফ গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট (বিআইজিডি)’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইমরান মতিন তাঁর উদ্বোধনী বক্তব্যে বলেন, “কোভিডের সময়ে কিশোর-কিশোরীদের ব্যাপারে খুব একটা গবেষণা এবং নীতিনির্ধারণী আলোচনা হয় নি। অর্থনৈতিক কারণ ও স্কুল বন্ধ থাকা- এই দুইয়ে মিলে তাদের জন্য আগে থেকেই চলমান ঝুঁকি বৃদ্ধি করেছে এবং নতুন ঝুঁকির ক্ষেত্র তৈরি করেছে। আমাদের গবেষণা এবং আজকের আলোচনা থেকে আমরা এটাই দেখার চেষ্টা করেছি নীতি নির্ধারণে ও কর্মসূচী প্রণয়নে কিভাবে ব্যাপারটিকে তুলে ধরা যায়।

অর্থনৈতিক সমস্যাকে পর্যালোচনা করা, শিক্ষার মানের উপর গুরুত্বারোপ করা এবং সামাজিকীকরণের শক্তিশালী মাধ্যম হিসেবে স্কুলকে গড়ে তোলা হতে পারে আমাদের নীতিগত অগ্রাধিকার।”

প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগের মাননীয় সচিব জনাব মোঃ গোলাম সারওয়ার। তিনি বলেন, “আমাদের নীতিনির্ধারনের ক্ষেত্রে সমস্যা থেকে উত্তরণ এবং একইসাথে মানুষের সক্ষমতা ও সুস্থতাকে সামগ্রিকভাবে গুরুত্ব দিতে হবে।

আরও স্থিতিস্থাপক এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক ব্যবস্থা প্রণয়নে সরকার, উন্নয়ন অংশীদার এবং সুশীল সমাজ একসঙ্গে কাজ করতে পারে। সেই ব্যবস্থাই আমাদের লিঙ্গ ও আর্থ-সামাজিক অবস্থা নির্বিশেষে ন্যায়বিচার প্রাপ্তিকে একটি মৌল মানবিক অধিকার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে পারে।”

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি উম্মে কুলসুম, যুগ্মসচিব (মতামত), আইন ও বিচার বিভাগ, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় প্রকল্প পরিচালক, জিআইজেড প্রকল্প- বলেন, “এটি খুব সুষ্পষ্ট যে সরকার ৮ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় কোভিড-১৯ থেকে পুনরুদ্ধারের কৌশল এবং লৈঙ্গিক সমতা ও নারীর ক্ষমতায়ন কাঠামোকে চিহ্নিত করেছে।

আলোচক-দর্শকদের মতামত এবং গবেষণা দলের কাছ থেকে গবেষণার মূল বিষয়বস্তু জানার পর আমি মনে করি, কোভিড থেকে উত্তরণের উপায় হিসেবে লৈঙ্গিক সমতা এবং নারী ক্ষমতায়ন কাঠামোকে অত্যন্ত গুরুত্ব দেয়া দরকার। এ গবেষণায় নারী ও কিশোরীদের যেসব সমস্যা উঠে এসেছে তা মোকাবেলায় এই কাঠামো বড় ভূমিকা রাখবে।”  

জাভেদ প্যাটেল, ডেপুটি হাই কমিশনার, ব্রিটিশ হাই কমিশন বলেন, “ইউকে ফরেন, কমনওয়েলথ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অফিস (এফসিডিও) ও জার্মান ফেডারেল মিনিস্ট্রি ফর ইকোনমিক কো-অপারেশান অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (বিএমজেড)’র সহায়তায় বিআইজিডি যে গবেষণাটি করেছে তাতে পরিষ্কার বোঝা যায় মহামারী কিভাবে কিশোর-কিশোরীদের উপর প্রভাব বিস্তার করেছে।

কোভিড পরবর্তী সময়ে তাদের  স্কুলে ফিরিয়ে নেয়া একটি বড় চ্যালেঞ্জ হবে। বিশেষ করে কিশোরীদের শিক্ষায় ফিরিয়ে নেয়াটা হয়তো  আরও অনিশ্চিত হবে।

ইউকে সরকার সম্প্রতি একটি আন্তর্জাতিক উন্নয়ন কৌশল গ্রহণ করেছে। নারী ও কিশোরীরা তাদের সফলতার পথটি যাতে স্বাধীনভাবে বেছে নিতে পারে সে ব্যাপারে এই ধরনের গবেষণা আমাদের অনেক সহায়তা করবে।”

“এবছর বাংলাদেশ-জার্মান অংশীদারিত্ব পঞ্চাশ বছরে পদার্পণ করলো। আজকের গবেষণার মত অন্যান্য গবেষণাগুলো উন্নয়ন অংশীদারিত্বের কেন্দ্রবিন্দু। উন্নয়ন উদ্যোগের মুল লক্ষ্য হচ্ছে প্রত্যেক মানুষের নিজস্ব সম্ভাবনার দ্বার খুলে দেওয়ার জন্য সুযোগ তৈরি করা।

এই গবেষণার মাধ্যমে আমরা জানতে পারি, কোভিডের কারণে কিশোর-কিশোরীদের সম্ভাবনা এবং সুযোগ কিভাবে সীমাবদ্ধ হয়েছে”, বলেন ক্যারেন ব্লুম, জার্মান দূতাবাসের উন্নয়ন সহযোগিতা বিভাগের উপপ্রধান।

ড. অ্যাঙ্গেলিকা ফ্লেডারমান, কান্ট্রি ডিরেক্টর, জিআইজেড বলেন, “কিশোর-কিশোরীদের উপর করা গবেষণা আমাদের ভবিষ্যৎ গড়ায় একটি অন্যতম ভুমিকা পালন করে, যেহেতু বাংলাদেশের জনগণের ২১ শতাংশই তরুণ।

অর্থাৎ, বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ তরুণ জনগোষ্ঠীর হাতে। শিশুদের জন্য সময়মত এবং সঠিক সিদ্ধান্ত নিলে সেটা তাদের জীবন এবং বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ গতিপথ নির্ধারণ করবে।”

গবেষণার ফলাফল উপস্থাপনের পর উপস্থিত বিশিষ্ট অতিথিরা একটি প্যানেল আলোচনায় অংশ নেন। সেখানে এম এম মাহমুদুল্লাহ, অতিরিক্ত পরিচালক (সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচী), সমাজসেবা অধিদপ্তর; সীমা মোসলেম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ; ড. শফিকুল ইসলাম, সাবেক পরিচালক (শিক্ষা), ব্র্যাক এবং ড. জিনিয়া আফরোজ, ক্ল্যারিসা কান্ট্রি কো-অর্ডিনেটর, টেরে দেস হোমস (টিডিএইচ) অংশ নেন। পরবর্তীতে অনুষ্ঠানে আগত অতিথিবৃন্দ উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন।    

গবেষণাটি জিআইজেড’র রুল অব ল প্রোগ্রামের কারিগরি সহায়তায় সম্পন্ন হয়েছে। এটি আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যৌথ একটি উদ্যোগ।

রুল অব ল প্রকল্পটি জার্মান ফেডারেল মিনিস্ট্রি ফর ইকোনমিক কোঅপারেশান অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট (বিএমজেড) ও ইউকে ফরেন, কমনওয়েলথ অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট অফিস (এফসিডিও)’র সহায়তায় পরিচালিত।

ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অফ গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট (বিআইজিডি) ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি স্বাধীন, সামাজিক বিজ্ঞান গবেষণা ও স্নাতকোত্তর শিক্ষাদান কেন্দ্র।

 

Read us@googlenews

Social

More News
© Copyright: 2020-2022

Bangladesh Beyond is an online version of Fortnightly Apon Bichitra 

(Reg no: DA 1825)

Developed By Bangladesh Beyond