[Valid RSS]
November 28, 2022, 3:46 pm
Treanding
GIZ Bangladesh’s training held on SDG localisation in Khulna ছোটদের সহজ প্রোগ্রামিং শিক্ষায় প্রকাশিত হল বাংলা স্ক্র্যাচ বই Ditching Russian gas no way to reach climate goals : Putin চট্টগ্রামে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ে প্রচারনা কর্মসূচি সমাপ্ত Samsung brings month-long smartphone campaign On September 6–7, Vladimir Putin will make working trip to Vladivostok Two Russian embassy workers killed in ‘suicide bombing’ Shocked & devastated by the horrific attacks : Justin Trudeau  SSC, equivalent exams begin Sept 15: Dipu Moni Ten killed in Canadian stabbing spree Russia wants UN to pressure US : media Daraz Bangladesh Anniversary Campaign – Now LIVE! realme offers upto BDT 3400 off on occasion of Daraz’s 8th anniversary General Pharmaceuticals employees will receive insurance from MetLife চট্টগ্রামের কলেজিয়েট স্কুলে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ে প্রচারনা কর্মসূচি শুরু Bangladesh a secular country, immediate action is taken whenever minorities are attacked: PM  Two more mortar shells from Myanmar land in Bangladesh OPPO launches killer device A57 in 15-20K price range ShareTrip and Grameenphone join hands to offer exciting travel privileges ড্যাপ ২০২২-২০৩৫ এর পরিপূর্ণ বাস্তবায়নের দাবী বিআইপির

Flood Rehabilitation Programs : implement through local orgs : civil society

Bangladesh Beyond
  • Updated on Monday, July 4, 2022
  • 274 Impressed

Flood Rehabilitation Programs to be Implemented through Local Organizations : Civil Society Demands

 

 

Dhaka July 04 2022 :

 

In any disaster, the local people and organizations are the first to stand by the people affected by the disaster.

Therefore, those concerned should increase the capacity of local organizations. That is why the post-flood rehabilitation activities in the Haor region must be implemented by local organizations.

This was stated by the speakers at a virtual press conference organized by BDCSO process, a network of about 700 national and local CSOs and NGOs.

Abdul Karim Kim, General Secretary of BDCSO Sylhet Division, presided over the press conference that was moderated by Rezaul Karim Chowdhury, National Coordinator, BDCSO Process.

BDCSO Sylhet Division President Tofazzal Sohel presented the keynote address on behalf of the organizers. Among others, Executive Director of AWARD Abul Kalam Azad, ADAB Sylhet Division Coordinator Babul Akhter, ADAB Sylhet District President ATM Badrul Islam, Professor of the Shahjalal University of Science and Technology, Sylhet Professor Zahirul Haque Shakil, and Disaster expert and writer Gowhar Naeem Wara also spoke at the occasion.

In his keynote address, Tofazzal Sohail noted that several organizations, including the United Nations, had recently surveyed the impact of the recent flood. In addition to assessing the damage, they have also verified the need for post-flood rehabilitation.

It is really good if international organizations stand by the people along with the government. But we are, as always, inspired by the role of local people and local organizations in this flood.

We believe that by recognizing this role, UN agencies and INGO should fund the implementation of post-flood rehabilitation programs through local organizations because local organizations understand the needs of local people best, and they can be more effective in implementing the program, the operating costs of local organizations are relatively low.

Babul Akhtar said any relief aid from outside should be coordinated with the local administration, involving local organizations. In this way, the right help can be reached to the right people.

Md. Abul Kalam Azad said, we have been working with the local people for a long time. We know the news of their house and their mind best. Therefore, if any program is implemented with our participation, it is more likely to be sustainable.

ATM Badrul Islam said many people are coming from far and wide to get relief around the city, but with the help of local organizations, it is possible to reach out to remote areas.

Local organizations know what kind of cooperation is needed in an area. Professor Zahirul Haque Shakil said, I saw a person spending 40,000 taka and bringing relief of 10,000 taka.

But if a local organization gave this relief, it could have given relief assistance of 50,000 taka. We have to think in the light of global realities, but we have to do it with local realities in mind.

Gawhar Naeem Wara said, it is now very important to determine what is needed for local rehabilitation. This demand needs to be verified by going to the local area, by the local agencies.

International organizations like the IoM should now stand by the people displaced by the floods in Haor as a matter of urgency. It’s not just a flood, it’s waterlogging. Its impact is far-reaching. It is very important to appoint a relief commissioner from the secretary level in each district.

Rezaul Karim Chowdhury said, the role of international organizations is important, but they should limit their activities to fundraising, technical assistance and monitoring, field-level activities should be implemented by local organizations and the whole process should be coordinated by the government.

 

 

 

 

বন্যা পুনর্বাসন কর্মসূচি স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর মাধ্যমেই বাস্তবায়নের দাবি নাগরিক সমাজের

 

ঢাকা ৪ জুলাই ২০২২ :

 

যেকোনও দুর্যোগে স্থানীয় মানুষ ও প্রতিষ্ঠানই সবার আগে দুর্যোগে পীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়ায়। তাই সংশ্লিষ্টদের উচিৎ স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধি করা।

একারণেই হাওড়াঞ্চলের বন্যা পরবর্তী পুনর্বাসন কার্যক্রম আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর উচিৎ মাঠ পর্যায়ে কার্যক্রম পরিচালনার জন্য স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে সহাযতা করা।

আজ প্রায় ৭০০ জাতীয় ও স্থানীয় এনজিও সুশীল সমাজ সংগঠনের নেটওয়ার্ক বিডিসিএসও আয়োজিত এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বক্তাগণ এসব কথা বলেন।

বিডিসিএসও প্রসেস জাতীয় সমন্বয়কারী রেজাউল করিম চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুৃষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন বিডিসিএসও সিলেট বিভাগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম। এতে আয়োজকদের পক্ষ থেকে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন বিডিসিএসও সিলেট বিভাগের সভাপতি তোফাজ্জল সোহেল। এতে আরও বক্তৃতা রাখেন এওয়ার্ডের নির্বাহী পরিচালক মো. আবুল কালাম আজাদ, এডাব সিলেট বিভাগের সমন্বয়কারী বাবুল আকতার, এডাব সিলেট জেলা সভাপতি এ টি এম বদরুল ইসলাম, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেটের অধ্যাপক জহিরুল হক শাকিল এবং দুযের্ঙাগ বিশেষজ্ঞ গওহার নঈম ওয়ারা।

মূল বক্তব্য উপস্থাপন করতে গিয়ে তোফাজ্জল সোহেল উল্লেখ করেন, জাতিসংঘসহ কয়েকটি সংস্থা সম্প্রতি বন্যা আক্রান্ত এলাকার ক্ষয়-ক্ষতির উপর একটি সমীক্ষা চালিয়েছে। ক্ষয়-ক্ষতি নিরূপণের পাশাপাশি তারা বন্যা পরবর্তী পুনর্বাসনের জন্য প্রয়োজনীয়তাও যাচাই করেছে। সরকারের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো যদি মানুষের পাশে দাঁড়ানো উচিৎ। তবে আমরা সবসময়র মতো এই বন্যায় স্থানীয় মানুষ ও স্থানীয় সংস্থাগুলোর ভূমিকায় অনুপ্রাণিত।

আমরা মনে করি, তাঁদের এই ভূমিকাকে স্বীকৃতি দিয়ে স্থানীয় সংস্থাগুলোর মাধ্যমেই বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কর্মসূচি বাস্তবায়নে তহবিল প্রদান করা উচিৎ, কারণ: স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলো স্থানীয় মানুষের প্রয়োজন সবচেয়ে ভাল বুঝেন, ফলে তাঁদেরকে কর্মসূচির বাস্তবায়ন অধিকতর কার্যকর হতে পারে, ফলে ভবিষ্যতে যেকোনও দুর্যোগে তাদেরকে দ্রুত সময়ে কার্যকরভাবে পাওয়া যাবে, স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যক্রমে পরিচালন ব্যয় তুলণামূলক কম।

বাবুল আকতার বলেন, বাইরে থেকে কোনও ত্রাণ সহায়তা এলে তা অবশ্যই স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে হওয়া উচিৎ, স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে সম্পৃক্ত করেই তা করতে হবে। এতে সঠিক মানুষের কাছে সঠিক সহায়তাটা পৌঁছানো যাবে। মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমরা দীর্ঘদিন স্থানীয় মানুষের সঙ্গে কাজ করি, আমরা তাদের ঘরের খরব-মনের খবর সবচাইতে ভালো জানি।

তাই আমাদেরকে পাশে রেখে কোনও কর্মসূচি বাস্তবায়ন হলে সেটা টেকসই হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। এটিএম বদরুল ইসলাম বলেন, দূর থেকে অনেকে এসে শহরের আশপাশে ত্রাণ দিয়ে দিয়ে চলে যাচ্ছেন, কিন্তু স্থানীয় প্রতিষ্ঠানের সহযোগিতা নিলে প্রত্যন্ত অঞ্চরেও সহায়তা পৌঁছানো সম্ভব।

স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলো জানে কোন এলাকায় কী ধরনের সহযোগিতা লাগবে। অধ্যাপক জহিরুল হক শাকিল বলেন, আমি দেখেছি একজন ৪০ হাজার টাকা খরচ করে ১০ হাজার টাকার ত্রাণ নিয়ে এসছেন। অথচ একটি স্থানীয় প্রতিষ্ঠান এই ত্রাণ দিলে পুরো ৫০ হাজার টাকা ত্রাণ সহায়তা দিতে পারতো। আমাদেরকে বৈশ্বিক বাস্তবতার আলোকে ভাবতে হবে, কিন্তু কাজটা করতে হবে স্থানীয় বাস্তবতা বিবেচনায় রেখে।

গওহার নঈম ওয়ারা বলেন, এখন স্থানীয় পুনর্বাসনের জন্য কী প্রয়োজন তার একটি চাহিদা নিরূপন করা খুবই জরুরি। এই চাহিদাটা যাচাই করতে হবে স্থানীয় এলাকায় গিয়ে, স্থানীয় সংস্থাগুলোকেই। আইএমও-এর মতো আন্তর্জাতিব সংস্থাগুলোকে এখন জরুরিভিত্তিতে হাওড়াঞ্চলে বন্যায় বাস্তুচ্যুত মানুষের পাশে দাঁড়ানো উচিৎ।

এটা শুদু একটা বন্যা নয়, এটা জলবাদ্ধতা। এর প্রভাব ব্যাপক। প্রতিটি জেলার জন সচিব পর্যায়ের একজন ত্রাণ কমিশনার নিয়োগ করা খুবই জরুরি।

রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর ভূমিকা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ, কিন্তু তাদেরকে তহবিল সংগ্রহ, কারিগরি সহায়তা ও মনিটরিংয়ে তাঁদের কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখতে হবে, মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রম স্থানীয় প্রতিষ্ঠানকেই বাস্তবায়ন করকে হবে আর পুরো প্রক্রিয়া সমন্বয় হতে হবে সরকারের মাধ্যমে।

 

Read us@googlenews

Social

More News
© Copyright: 2020-2022

Bangladesh Beyond is an online version of Fortnightly Apon Bichitra 

(Reg no: DA 1825)

Developed By Bangladesh Beyond