[Valid RSS]
October 1, 2022, 2:45 pm
Treanding
GIZ Bangladesh’s training held on SDG localisation in Khulna ছোটদের সহজ প্রোগ্রামিং শিক্ষায় প্রকাশিত হল বাংলা স্ক্র্যাচ বই Ditching Russian gas no way to reach climate goals : Putin চট্টগ্রামে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ে প্রচারনা কর্মসূচি সমাপ্ত Samsung brings month-long smartphone campaign On September 6–7, Vladimir Putin will make working trip to Vladivostok Two Russian embassy workers killed in ‘suicide bombing’ Shocked & devastated by the horrific attacks : Justin Trudeau  SSC, equivalent exams begin Sept 15: Dipu Moni Ten killed in Canadian stabbing spree Russia wants UN to pressure US : media Daraz Bangladesh Anniversary Campaign – Now LIVE! realme offers upto BDT 3400 off on occasion of Daraz’s 8th anniversary General Pharmaceuticals employees will receive insurance from MetLife চট্টগ্রামের কলেজিয়েট স্কুলে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ে প্রচারনা কর্মসূচি শুরু Bangladesh a secular country, immediate action is taken whenever minorities are attacked: PM  Two more mortar shells from Myanmar land in Bangladesh OPPO launches killer device A57 in 15-20K price range ShareTrip and Grameenphone join hands to offer exciting travel privileges ড্যাপ ২০২২-২০৩৫ এর পরিপূর্ণ বাস্তবায়নের দাবী বিআইপির

PKSF ensures potable water supply to 250 families in coastal areas

Bangladesh Beyond
  • Updated on Wednesday, July 27, 2022
  • 143 Impressed

PKSF ensures potable water supply to 250 families in coastal areas

 

Dhaka  July 27 2022 :

 

 

Advocate Gloria Jharna Sarker, a reserved seat Member of Parliament, on 27 July 2022 inaugurated a Reverse Osmosis (RO) plant, set up with financial and technical support from Palli Karma-Sahayak Foundation (PKSF) in Koyra upazila of Khulna, a coastal district that faces serious crisis of potable water due to salinity and rising sea level due to the changing climate.

 

With this, PKSF has so far installed 70 RO plants to ensure pure drinking water in six coastal districts – Bagerhat, Barguna, Khulna, Satkhira, Patuakhali and Pirojpur – where potable water is becoming a scarce commodity. A main feature of these plants is that they collect water from open sources rather than extracting groundwater which is depleting fast.

 

“In Bangladesh and around the world, tens of thousands of people are facing the challenge of living without access to safe water. Now more than ever access to safe water is critical to people’s health, especially those living in coastal districts,” said Advocate Gloria Jharna Sarker after inaugurating the plant that can produce enough water (1,000 liters per hour) to meet the demand of some 250 families on a regular basis. She called upon the government and non-government organizations concerned to take the southern coastal belt’s water crisis seriously and devise plans accordingly for short-term and long-term solutions.

 

Speaking on the occasion, PKSF Managing Director Dr Nomita Halder ndc, also a former secretary, reiterated PKSF’s commitment to keep its Water, Sanitation & Hygiene (WASH) initiatives on the top of its development agenda. “Access to water can protect and save lives by preventing various diseases and turn problems into potentials – unlocking the opportunities for education, job placement and improved health. This is why we in PKSF attach high priority to ensuring safe drinking water in communities affected by the potable water crisis,” she added.

 

Koyra Upazila Nirbahi Officer Animesh Biswas was also present at the event. 

 

Bangladesh has made substantial progress in ensuring universal access to improved water, with more than 97% of the population having access. But access to safe drinking water is still low at 34.6% (UNICEF). Scarcity of safe drinking water is becoming more acute in changing climate situations from the combined effects of sea level rise, drop in ground water level, changes in upstream river discharge and increased frequency of more intense cyclones and tidal surges. Drinking water sources are also contaminated during frequent disasters such as floods, cyclones and tidal surges. Women and girls, traditionally thought to be responsible for collecting water for household use, are affected disproportionately by the crisis.

 

To ensure drinking water in crisis-hit regions, PKSF has so far undertaken nine initiatives involving nearly BDT 49 crore, including distribution of rainwater harvesting tanks, establishment of RO plants, distribution of safe drinking water after natural disasters and establishments of deep and shallow tube wells as well as supply pipelines in different districts, including in the hills.

 

 

 

উপকূলীয় ২৫০ পরিবারের জন্য সুপেয় পানির সুব্যবস্থা করল পিকেএসএফ

 

 

ঢাকা ২৭ জুলাই ২০২২ : 

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার আজ (বুধবার, ২৭ জুলাই ২০২২) খুলনা জেলার কয়রা উপজেলার আমাদী ইউনিয়নের ঋষি পাড়ায় একটি রিভার্স অসমোসিস প্ল্যান্ট উদ্বোধন করেন। বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত দেশের শীর্ষ উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ)-এর আর্থিক ও কারিগরি সহযোগিতায় এই সুপেয় পানির প্ল্যান্ট স্থাপন করা হয়।

 

জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে সমুদ্রের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি ও লবণাক্ততার ফলে উপকূলীয় এলাকার মানুষ সুপেয় পানির তীব্র সঙ্কটে ভুগছেন। উপকূলীয় এলাকায় সুপেয় পানির অভিগম্যতা নিশ্চিতকরণে বাগেরহাট, বরগুনা, খুলনা, সাতক্ষীরা, পটুয়াখালী ও পিরোজপুর জেলায় পিকেএসএফ এ পর্যন্ত ৭০টি পানির প্ল্যান্ট স্থাপন করেছে। পিকেএসএফ-এর সহায়তায় স্থাপিত এসব সুপেয় পানির প্ল্যান্টের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, প্ল্যান্টগুলোতে ভূগর্ভস্থ পানির পরিবর্তে ভূপৃষ্ঠের উন্মুক্ত উৎস থেকে পানি সংগ্রহ করা হয়।

 

পানির প্ল্যান্টটি উদ্বোধনকালে সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার বলেন, “বাংলাদেশ-সহ বিশ্বজুড়ে অসংখ্য মানুষ নিরাপদ পানির অভাবের মধ্যে বসবাস করছেন। মানুষের সুস্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ পানির অভাব পূরণ খুবই গুরুত্বপূর্ণ।” খুলনার এই সাংসদ দেশের সকল সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান যেন দক্ষিণাঞ্চলের উপকূলীয় এলাকার পানির সঙ্কটকে যথেষ্ট গুরুত্ব দেয় এবং স্বল্পমেয়াদ ও দীর্ঘমেয়াদে সঙ্কট সমাধানে উপযুক্ত পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে আসে সে আহ্বান জানান।

 

পিকেএসএফ-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. নমিতা হালদার, এনডিসি, সুপেয় পানি নিশ্চিতকরণে পিকেএসএফ-এর অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, “নিরাপদ সুপেয় পানি মানুষের জীবন বাঁচায়, রোগ প্রতিরোধ করে এবং বিভিন্ন সমস্যাকে সম্ভাবনায় রূপ দেয়। শারীরিক সুস্থতা মানুষের স্বাভাবিক শিক্ষাজীবন ও কর্মজীবনের জন্য খুবই প্রয়োজন। আর এ কারণেই সুপেয় পানির অভাব রয়েছে এমন কমিউনিটিতে নিরাপদ পানি নিশ্চিতকরণকে পিকেএসএফ গুরুত্ব দিয়ে আসছে। পিকেএসএফ এর উন্নয়ন পরিকল্পনায় নিরাপদ পানি নিশ্চিতকরণের বিষয়টি তাই বিশেষ অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে।”   

 

বুধবার উদ্বোধন হওয়া পানির প্ল্যান্টটি থেকে ঘন্টায় ১,০০০ লিটার সুপেয় পানি উৎপাদিত হবে, যা থেকে দৈনিক ২৫০টি পরিবারের প্রতিদিনের পানির অভাব পূরণ সম্ভব হবে। ইউনিসেফ-এর তথ্য অনুসারে, সবার জন্য খাবার পানি নিশ্চিতকরণে বাংলাদেশ প্রভূত অগ্রগতি অর্জন করেছে। দেশের ৯৭% মানুষের খাবার পানির সংস্থান রয়েছে। তবে, নিরাপদ সুপেয় পানির অভিগম্যতা রয়েছে মাত্র শতকরা ৩৪.৬ ভাগ মানুষের।

 

সমুদ্রের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি, ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নেমে যাওয়া, নদীর জোয়ার-ভাটার পরিবর্তন, ঘনঘন সাইক্লোন ও জলোচ্ছ্বাসের কারণে নিরাপদ পানির অভাব দিন দিন আরও বেড়ে যাচ্ছে। ঘনঘন প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন- বন্যা, সাইক্লোন ও জলোচ্ছ্বাসের কারণে খাবার পানির বিভিন্ন উৎস দূষিত হচ্ছে। এই সংকটের নির্মম বৈষম্যের শিকার দেশের নারী ও মেয়ে শিশুরা যারা ঐতিহ্যগতভাবে সুপেয় পানি সংগ্রহের ভার বহন করে থাকে। সঙ্কটপীড়িত অঞ্চলে সুপেয় পানির অভাব পূরণে পিকেএসএফ এ যাবৎ ৪৯ কোটি টাকা ব্যয়ে ৯টি উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এসব উদ্যোগের মধ্যে বৃষ্টির পানি সংরক্ষণে পানির ট্যাংক বিতরণ, রিভার্স অসমোসিস প্ল্যান্ট স্থাপন, প্রাকৃতিক দুর্যোগকালে নিরাপদ সুপেয় পানি বিতরণ এবং পাহাড়ি এলাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় গভীর ও অগভীর নলকূপ ও সাপ্লাই পাইপলাইন স্থাপন উল্লেখযোগ্য।

 

Read us@googlenews

 

Social

More News
© Copyright: 2020-2022

Bangladesh Beyond is an online version of Fortnightly Apon Bichitra 

(Reg no: DA 1825)

Developed By Bangladesh Beyond